ভারত সহ বিশ্বে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বাড়ছে অপরাধ, ব্যর্থ সরকার, কড়া বিবৃতি দিলো International Press Institute

২ নভেম্বর পালিত হবে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপরাধ মুক্তির আন্তর্জাতিক দিবস। তার আগে ভিয়েনায় অবস্থিত IPI ‘ডেথ ওয়াচ’ শীর্ষক বিবৃতিতে বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক হত্যার কড়া নিন্দা করল। বিবৃতিতে তাঁরা জানিয়েছে, ২০১৯ এর অক্টোবর মাসের পর থেকে ভারতে দুই সাংবাদিক-সহ মোট ৫২ জন সাংবাদিক পেশাগত কর্তব্য পালন করতে গিয়ে মারা গিয়েছেন। যার মধ্যে ২৪ জন সাংবাদিককে টার্গেট করে খুন করা হয়েছে বলে জানাচ্ছে ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট।

বিবৃতিতে তাদের দাবি, আরও ১৫ টি মামলাকে টার্গেট অ্যাটাক বলে ধরা যেতে পারে। কিন্তু যেহেতু এই মামলাগুলো তদন্তাধীন তাই একে তারা হিসেবে রাখছে না। বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক, সম্পাদক ও গণমাধ্যমের কর্মীদের নিয়ে তৈরি এই সংগঠনের বিবৃতিতে উঠে এসেছে সিরিয়া, ইরাক, ভারতে খুন হওয়া সাংবাদিকদের কথা। তাদের দাবি, গত বছরের অক্টোবর থেকে সিরিয়ায় সাত সংবাদকর্মী, ইরাক ও আফগানিস্থানে একজন করে সাংবাদিক হিংসার কবলে প্রাণ হারিয়েছেন। এছাড়া দু’জন সাংবাদিক অ্যাসাইনমেন্টে গিয়ে খুন হন। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে হিংসার ধারা বেড়েই চলেছে। সেই সঙ্গে বহু ক্ষেত্রেই মূল অপরাধীরা এখনও অধরা। এই প্রেক্ষিতে সরকারের ব্যর্থতার দিকে আঙুল তুলেছে আন্তর্জাতিক সাংবাদিক সংগঠন। তারা জানিয়েছে, ৫২ টি সাংবাদিক মৃত্যু মামলায় কেবল এশিয়ায় ৫ টি আমেরিকায় ৫ টি মিলিয়ে মোট ১০ টি কেসে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা গিয়েছে। বাকি মামলার অভিযুক্তরা আজও অধরা। তাছাড়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপরাধের ঘটনায় বিভিন্ন দেশের সরকারের ভূমিকাও যথাযথ নয়। আইপিআই’র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত বছরের মতো এবারেও সর্বাধিক সাংবাদিক হত্যার ঘটনা ঘটেছে আমেরিকা মহাদেশে, ২১ টি। এশিয়ায় খুন হয়েছেন ১১ জন সাংবাদিক। যার মধ্যে তিনজন ফিলিপাইনের, ভারত, ইন্দোনেশিয়া ও পাকিস্তানে দু’জন সাংবাদিক এবং কম্বোডিয়া ও বাংলাদেশে একজন করে সাংবাদিক ছিলেন। মৃত সাংবাদিকদের জন্য ন্যায় বিচার ও শীঘ্রই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপরাধ কমানোর জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারের কাছে আবেদন রেখেছে আইপিআই।

Comments
Loading...