জামাত ই ইসলামিকে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করল কেন্দ্র

জামাত-ই-ইসলামিকে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করল কেন্দ্র। পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পরিপ্রেক্ষিতে উপত্যকার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বাগে আনতে অভিযান চালাচ্ছে ভারতীয় সেনা। জামাত-ই-ইসলামি সহ বেশ কয়েকটি বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের নেতাদের গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। বৃহস্পতিবার জামাত-ই-ইসলামকে নিষিদ্ধ সংগঠনের তকমা দিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।
কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, দেশবিরোধী কার্যকলাপের জন্য এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের কমিটির বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের এক নির্দেশিকায় বলা হয়, বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলির সঙ্গে জামাত-ই-ইসলামির দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে এবং জম্মু-কাশ্মীর সহ বিভিন্ন জায়গায় বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপে মদত দেয় এই সংগঠন। নির্দেশিকায় আরও বলা হয়, জামাত-ই-ইসলামি দেশভাগের পক্ষে সওয়াল করে ভারতের অখণ্ডতায় আঘাত হানছে। তাই এখনই এই সংগঠনকে নিষিদ্ধ না করা হলে উপত্যকাজুড়ে হিংসা সৃষ্টি ও দেশবিরোধী কাজ চলতে থাকবে বলে দাবি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।
গত সপ্তাহে জম্মু-কাশ্মীরে ‘জামাত-ই-ইসলামির’ প্রায় ২৫০ জন নেতা ও কর্মীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যাঁর মধ্যে রয়েছেন আবদুল হামিদ ফায়েজ, সংগঠনের প্রাক্তন জেনারেল সেক্রেটারি গুলাম কাদির লোন, ‘জামাত-ই-ইসলামির’ মুখপাত্র আইনজীবী জাহিদ আলি সহ জেলা স্তরের নেতারা।
উল্লেখ্য, জম্মু-কাশ্মীরে জামাত-ই-ইসলামিকে একসময় জঙ্গি সংগঠন হিজব-উল-মুজাহিদিনের ‘রাজনৈতিক সংগঠন’ বলে মনে করা হত।

Comments
Loading...