মমতা: নেতাজির নামে মনুমেন্ট ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় গড়বে রাজ্য, প্ল্যানিং কমিশনের আদলে বেঙ্গল প্ল্যানিং কমিশন

নেতাজির নামে রাজারহাটে হবে মনুমেন্ট। গড়া হবে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। প্ল্যানিং কমিশনের আদলে হবে বেঙ্গল প্ল্যানিং কমিশন। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মবার্ষিকী উৎযাপনে একগুচ্ছ পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

সোমবার নেতাজির জন্মবার্ষিকী উদযাপন কমিটির অনলাইন বৈঠকে মমতা বলেন, সুভাষচন্দ্রের যে মূল্যায়ন করার প্রয়োজন ছিল তা স্বাধীনতা পরবর্তী ভারতে হয়নি। মমতা জানান, সুভাষচন্দ্রের জন্মদিবসে জাতীয় ছুটি ঘোষণা করার জন্য কেন্দ্রকে আবেদন করেছেন তিনি। তাঁর কথায়, নেতাজির জন্মদিবসে এইটুকু সম্মান যদিও আমরা না দিতে পারি, তাহলে আর কী করলাম! সেই সঙ্গে ২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্মদিবসকে দেশনায়ক দিবস হিসেবে উৎযাপন করার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

ভার্চুয়াল মিটিংয়ে মমতা জানান, আজাদ হিন্দ ফৌজ নামে রাজারহাটে একটি মনুমেন্ট করার পরিকল্পনা করেছেন তিনি। বলেন, নেতাজি সুভাষচন্দের নামে একটি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আমরাই করব। এর জন্য কেন্দ্রের কাছে কোনও অনুদান নেওয়া হবে না বলে ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর। তাঁর ঘোষণা, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে স্নগযোগ থাকভে হাভার্ড, অক্সফোর্ড, কেমব্রিজের মতো আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের। এই সংযোগ রক্ষার দায়িত্ব তিনি দেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক ব্যানার্জি, ইতিহাসবিদ সুগত বসুদের। বৈঠকে মমতার আরও ঘোষণা, কেন্দ্রে যে প্ল্যানিং কমিশন উঠিয়ে দিয়ে নীতি আয়োগ করেছে কেন্দ্র, সেই প্ল্যানিং কমিশনের আদলে এ রাজ্যে বেঙ্গল প্ল্যানিং কমিশন তৈরি করবে রাজ্য সরকার। মমতার দাবি, প্ল্যানিং কমিশন তুলে দিয়ে রাজ্যগুলির সঙ্গে আলোচনার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তাই বেঙ্গল প্ল্যানিং কমিশন চালু করব। তাঁর কথায়, কেউ মানবে কেউ মানবে না। অমর্ত্যদা (সেন), অভিজিৎদারা (ব্যানার্জি) পরামর্শ দিলে খুব ভালো হবে।

এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা, স্কুল- কলেজে যেমন এনসিসি হয়, তার সঙ্গে থাকবে জয় হিন্দ বাহিনি। সরকারের দায়িত্বে থাকা এই প্রোজেক্ট কন্যাশ্রী প্রকল্পের মতো ব্র্যান্ড তৈরি করবে। যারা এই বাহিনিতে নাম লেখাবে তারা সরকারের সোশ্যাল ওয়ার্ক, ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট, প্যারেড ও স্কলারশিপে অগ্রাধিকার পাবে।

মমতার ঘোষণা, এবার ২৩ জানুয়ারি বেলা ১২ টায় সারা বাংলায় সাইরেন বেজে উঠবে। শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড় থেকে শুরু হবে বিরাট মিছিল। সেই মিছিল শেষ হবে রেড রোডে। ১২ টা ১৫ মিনিটে সারা ভারতজুড়ে শঙ্খধ্বনি করার আবেদন জানান মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়া মুসলিমদের আজান দিতে বলেন। তাঁর কথায়, ট্যাবলো মাস্ট, নেতাজির আজাদ হিন্দ বাহিনির নামে ট্যাবলো থাকবে। এবার ১৫ অগাস্টের প্যারেড পুরোপুরি নেতাজিকে উৎসর্গ করবে রাজ্য সরকার। সারা বিশ্বে যত ভারতীয় অ্যামবাসি আছে সেখানেও সুভাষচন্দ্রের জন্মজয়ন্তী উৎযাপনের আবেদন করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এছাড়া নেতাজি রচনাবলীকে হিন্দি, উর্দু সহ বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করা এবং সেই কাজ খতিয়ে দেখতে সুগত ও সুমন্ত্র বসুকে নিয়ে কমিটি গড়ে দেওয়া হবে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানান। স্কুল ও কলেজে সারা বছর ধরে এবার নেতাজিকে নিয়ে বিতর্ক, ক্যুইজের মতো প্রতিযোগিতা হবে। আজাদ হিন্দ বাহিনির গান দিয়ে একটা ক্যাসেট তৈরি করবে সরকার। তৈরি হবে শর্ট ফিল্ম। সেই ফিল্ম রাখা হবে নেতাজি ভবনে বা এমন কোনও জায়গায় যেখানে দল করে দেখতে আসবে ছাত্রছাত্রীরা। মমতা আরও বলেন, তাঁর নিজের খুব ইচ্ছে যে নেতাজির তরুণের স্বপ্ন বইটি সব ভাষায় অনুবাদ হয়।এদিনের অনলাইন বৈঠকে মমতার সঙ্গে যোগ দেন অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক ব্যানার্জি, ইতিহাসবিদ সুগত বসু, লেখক শীর্ষেন্দু মুখার্জি ও আরও অনেকে।

Comments
Loading...