নোট বাতিলের দু’বছর পূর্তিতে দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তথা বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ মনমোহন সিংহ এক বিবৃতিতে এই ইস্যুতে ফের নরেন্দ্র মোদী সরকারের তীব্র সমালোচনা করলেন।
তাঁর কথায়, বলা হয় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ক্ষত নিরাময় হয়, কিন্তু নোটবন্দি এমন এক ক্ষত দেশের অর্থনীতিতে তৈরি করেছে, যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও প্রকট হচ্ছে। তাঁর মতে, এটা সরকারের অপরিকল্পিত সিদ্ধান্তের ফসল। গোটা বিষয়কে ‘ইল-ফেটেড’ ও ‘ইল-থট’ আখ্যা দিয়ে মনমোহন বলেছেন, অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত আরও যত্ন ও চিন্তা-ভাবনা করে নেওয়া উচিত।
তবে বিরোধীদের সমালোচনার মধ্যেও নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের মূল কারিগর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। এদিন এক ফেসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, দেশের অর্থনীতির অবস্থা শোধরাতে ও দৃঢ় করতে বর্তমান সরকার যে সমস্ত পদক্ষেপ নিয়েছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য এই নোটবন্দির সিদ্ধান্ত। তিনি পরিসংখ্যান দিয়ে বলেছেন, করদাতার সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণের কাছাকাছি হয়েছে গত চার বছরে, যা খুব শীঘ্রই দ্বিগুণ হয়ে যাবে। এর অন্যতম কারণ নোটবন্দি।
আরবিআই-এর রিপোর্ট তুলে ধরে বিরোধীরা যে দাবি করছে, নোট বাতিলের সময় বাজারে যে নোট ছিল তার প্রায় ৯৯ শতাংশ ব্যাঙ্কে ফিরে এসেছে, তার জবাবে জেটলি লিখেছেন, বাজারে থাকা নগদের পরিমাণ কমানো সরকারের লক্ষ্য ছিল না। বিরোধীদের দাবি, নোট বাতিলের সময় সরকার বলেছিল, এর ফলে বাজারে থাকা কালো টাকা আটকানো সম্ভব হবে, তা আর ব্যাঙ্কের মাধ্যমে দেশের অর্থ ব্যবস্থায় ফিরবে না। জেটলির দাবি, এই সিদ্ধান্তের ফলে প্রায় ১৭ লক্ষ ভুঁয়ো ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের খোঁজ মিলেছে।

You may also like