উর্জিত প্যাটেল ব্যক্তিগত কারণে ছ’মাস আগেই ইস্তফা দিতে চেয়েছিলেন, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর ইস্যুতে মুখ খুললেন মোদী

এই প্রথম রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর উর্জিত প্যাটেলের ইস্তফা নিয়ে মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মঙ্গলবার সংবাদসংস্থা এএনআই-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উর্জিত প্যাটেল পদত্যাগ করেছেন সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারণে। তাঁর ইস্তফার পিছনে কোনও রাজনৈতিক অভিসন্ধি নেই। মোদী বলেন, উর্জিত প্যাটেল ৬-৭ মাস আগেই ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছিলেন। এমনকী তিনি লিখিত আকারেও জানিয়েছিলেন। এরপর ১০ ডিসেম্বর ইস্তফা দেন উর্জিত।
মোদী এদিন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নরের প্রশংসা করে বলেন, তিনি যথেষ্ট যোগ্য ছিলেন। গভর্নর হিসাবে অনেক ভাল কাজ করেছেন। যদিও, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক এবং কেন্দ্রের টানাপোড়েনে তাঁর পদত্যাগ নিয়ে জল্পনা আগেই তৈরি হয়েছিল। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ডেপুটি গভর্নর বিরল আচার্যের প্রকাশ্যে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সমালোচনায় বিতর্কের সূত্রপাত হয়। তিনি দাবি করেছিলেন, কেন্দ্র যেভাবে স্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের উপর হস্তক্ষেপ করছে, তাতে আর্থিক বিপর্যয়ের মুখে পড়বে দেশ। অভিযোগ ওঠে, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের উপর ক্রমাগত চাপ তৈরি করে কেন্দ্র। কেন্দ্রের চাপে পড়েই শেষমেশ পদত্যাগ করেন উর্জিত প্যাটেল, এমনটাই দাবি বিরোধীদের। কিন্তু এদিন প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দেন, প্রাক্তন গভর্নর প্যাটলেও তাঁর ছোট্ট ইস্তফাপত্রে জানিয়েছিলেন, ব্যক্তিগত কারণেই পদত্যাগ করছেন তিনি।
বছরের প্রথম দিন তাঁর একাধিক বিদেশ সফর নিয়েও প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, প্রত্যেক প্রধানমন্ত্রীকেই বিদেশ সফর করতে হয়, কারও কম কারও বেশি। এটা নির্ভর করে তাঁর গুরুত্ব অনুযায়ী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন তাঁর ব্যায় বহুল এবং এক দেশে একাধিকবার বিদেশ সফর নিয়ে সমালোচনার জবাবে জানান, গত চার বছরে তিনি অনেক বিদেশ ভ্রমণ করেছেন সে কথা ঠিকই, কিন্তু তাঁকে সেটা করতে হয়েছে বাধ্য হয়ে। বিদেশে তাঁর ঘন ঘন ভ্রমণের কারণ ছিল আন্তর্জাতিক ফোরাম এবং একাধিক শীর্ষ সম্মেলন। যেখানে তাঁর যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা ছিল। এমনকী মনমোহন সিংহকেও এটা করতে হয়েছিল বলে তিনি উল্লেখ করেন মোদী।

Comments
Loading...