ভুয়ো খবর প্রকাশ করে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগে বেঙ্গালুরুতে গ্রেফতার বিজেপি ঘনিষ্ঠ নিউজ পোর্টালের মালিক

মোদী সরকারে নয়া ট্রেন্ড মেনে ট্যুইটার হ্যান্ডেলে নিজের নামের আগে যোগ করেছিলেন ‘চৌকিদার’। খোদ প্রধানমন্ত্রী তাঁকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফলো করেন। সেই ইংরেজি নিউজ পোর্টাল ‘পোস্টকার্ড’ এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা মহেশ বিক্রম হেগড়েকে মিথ্যা ও ভুয়ো খবর পরিবেশনের দায়ে গ্রেফতার করল কর্ণাটক পুলিশ ।
ঘটনার সূত্রপাত গত ১৮ ই মার্চ। সেদিন ‘Postcard News’ পোর্টালের ফেসবুক পেজে একটি খবর প্রকাশিত হয়। সেখানে দাবি করা হয়, কর্ণাটকের কণকপুরে এক জৈন সাধুকে বেধড়ক মারধর করেছেন এক মুসলিম যুবক। সঙ্গে দেওয়া হয় আহত সাধুর ছবিও। এই খবরটিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে সংশ্লিষ্ট সংবাদমাধ্যমের মালিক মহেশ বিক্রম হেগড়ে লেখেন, মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়ার আমলে কর্ণাটকে কেউ আর নিরাপদ নন। মূহুর্তের মধ্যে এই খবরটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। শুরু হয়ে যায় রাজনৈতিক চাপানউতোর।
যদিও সেদিন এমন কোনও ঘটনা ঘটেনি বলে জানিয়েছে বেঙ্গালুরু পুলিশ। তদন্ত করে পুলিশ জানতে পারে, ময়াঙ্ক সাগর নামে ওই জৈন সাধু একটি বাইক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছিলেন। তবে এখন তিনি সুস্থ।
এরপরই মহেশ বিক্রম হেগড়েকে গ্রেফতার করে কর্ণাটক পুলিশ। মিথ্যে তথ্য পরিবেশন করে ইচ্ছাকৃতভাবে ধর্মীয় বিভেদ সৃষ্টি, ধর্মীয় আবেগে আঘাত করা ও ষড়যন্ত্রমূলক কাজের অভিযোগে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫৩এ, ২৯৫এ এবং ১২০বি ধারায় মামলা রুজু হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।
‘Postcard News’ পোর্টালের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় মিথ্যা এবং পক্ষপাতমূলক খবর পরিবেশনের অভিযোগ উঠেছে। ‘Postcard News’ এর মালিক মহেশ বিক্রম হেগড়ে ও গৌরব প্রধানের বিরুদ্ধে আগেও ভুয়ো খবর প্রকাশের অভিযোগ উঠেছে। আর এদের দু’জনকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ফলো করেন বিজেপির তাবড় নেতারা। পোস্টকার্ডে প্রকাশিত বিভিন্ন খবর নিয়মিত নিজেদের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে শেয়ারও করেন বিজেপি নেতা-মন্ত্রীরা।
মহেশ বিক্রম হেগড়ের গ্রেফতারির ঘটনায়, প্রত্যাশিতভাবেই তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সহ কর্ণাটকের বিজেপি নেতৃত্ব।
এর আগেও ভুয়ো খবর প্রচারের অভিযোগ উঠেছে বিজেপি ঘনিষ্ঠ এই পোর্টালের বিরুদ্ধে

Comments
Loading...