পারস্পরিক সম্মতিক্রমে সম্পর্ক গড়ে ওঠেনি, বলপ্রয়োগ করেছিলেন আকবর, জানালেন মার্কিন নিবাসী পল্লবী গগৈ

পারস্পরিক সম্মতিতে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল বলে যে দাবি শুক্রবার এম জে আকবর করেছিলেন, তা খারিজ করে দিলেন তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা মহিলা সাংবাদিক মার্কিন নিবাসী পল্লবী গগৈ।
শুক্রবারই সামনে এসেছিল প্রাক্তন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ। বর্তমানে মার্কিন নিবাসী মহিলা সাংবাদিক পল্লবী গগৈয়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে আত্মপক্ষ সমর্থনে মুখ খুলছিলেন প্রাক্তন সাংবাদিক, সম্পাদক এম জে আকবর। পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তাঁর স্ত্রীও। সংবাদসংস্থা এএনআই’কে এই নয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুক্রবার আকবর বলেছিলেন, পল্লবীর অভিযোগ সত্যি নয়। কারণ তাঁদের দুজনের মধ্যে যা হয়েছিল তা পারস্পরিক সম্মতিতে। আকবরের দাবি ছিল, যে সময়ের কথা বলা হচ্ছে, সেই ১৯৯৪ সাল নাগাদ কয়েকমাসের জন্য তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক ছিল। সে সময় তাঁদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কও হয়। এই বিষয়ে মুখ খুলে আকবরের স্ত্রী মল্লিকা আকবর বলেছিলেন, ওই মহিলার সঙ্গে প্রায় বছর ২০ আগে তাঁর স্বামীর যে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল তার জন্য সংসারে অশান্তিও হোত।
কিন্তু শনিবারই আকবরের এই বিবৃতিকে সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে খারিজ করে দিলেন পল্লবী। শনিবার একটি ট্যুইট করেন পল্লবী গগৈ। সেখানে তিনি লেখেন, পারস্পরিক সম্মতিক্রমে কোনও সম্পর্কই আমাদের মধ্যে ২০ বছর আগে গড়ে ওঠেনি। যা হয়েছিল তা বলপ্রয়োগ, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং তা হয়েছিল সম্পূর্ণভাবে তাঁর অসম্মতিতে। পল্লবীর কথায়, যে কোনও কুখ্যাত, ধারাবাহিক যৌন লালসা প্রকাশকারী ব্যক্তির মতোই নিজের ক্ষমতার আস্ফালন দেখিয়েছিলেন আকবর, এখন মিথ্যা কথা বলছেন। পল্লবী জানিয়েছেন, তিনি তাঁর অভিযোগে দৃঢ় এবং ভবিষ্যতেও তাই কথা থাকবেন।

উল্লেখ্য, একাধিক মহিলাকে যৌন হেনস্থার অভিযোগের জেরে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য হয়েছেন প্রাক্তন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী তথা সাংবাদিক এম জে আকবর। এই পরিস্থিতিতে তাঁর বিরুদ্ধে সরাসরি ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিবাসী প্রবাসী ভারতীয় সাংবাদিক পল্লবী গগৈ। ‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন, প্রায় দু’দশক আগে তিনি কাজ করেছেন এম জে আকবরের সঙ্গে। তাঁর অভিযোগ, ‘দ্য এশিয়ান এজ’ সংবাদপত্রের মুখ্য সম্পাদক পদে থাকার সময় একদিন জয়পুরের এক হোটেলে ডেকে তাঁকে ধর্ষণ করেন আকবর।

Comments
Loading...