গত ৮ বছরে যত রাস্তা হয়েছে, তা ১০০ বছরে হয়নি, পথশ্রী প্রকল্পের সূচনা করে বললেন মুখ্য মন্ত্রী

উত্তরবঙ্গ সফর থেকে ‘পথশ্রী’ প্রকল্পের সূচনা করলেন মুখ্য মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ির ফুলবাড়ি থেকে রাজ্যের পঞ্চায়েত দফতরের অধীনস্থ ‘‌পথশ্রী অভিযান’‌ প্রকল্পের উদ্বোধন হল। রাজ্যব্যাপী ৭ হাজার রাস্তার বিস্তার এবং মোট ১২ হাজার কিলোমিটার গ্ৰামীণ রাস্তা নতুন করে তৈরি করা হবে এই প্রকল্পে। মুখ্য মন্ত্রী ফুলবাড়ির রাজগঞ্জ ব্লকের পূর্ব ধানতলা গ্রামে সেই কাজেরই সূচনা করলেন বৃহস্পতিবার। প্রকল্পের সূচনা করে মুখ্য মন্ত্রী বলেন, গত আট বছরে রাজ্যে যত রাস্তা হয়েছে, আগের ১০০ বছরে তত হয়নি।

সরকারি সূত্রে দাবি, ২০১১ সালে তৃণমূল সরকার ক্ষমতার আসার আগে পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে মোট পাকা রাস্তার পরিমাণ ছিল ৯২ হাজার ২৩ কিলোমিটার। আর তৃণমূলের শাসনকালে মাত্র ৮ বছরে ৩ লক্ষ ১৬ হাজার ৭৩০ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। অর্থাৎ, এই আট বছরে রাস্তা বৃদ্ধির হার দাঁড়িয়েছে ২৪২ শতাংশ। এখন পথশ্রী অভিযানের জন্য ৫০০ কোটি টাকারও বেশি বরাদ্দ করা হয়েছে। মুখ্য মন্ত্রী জানান, ২০২০-২১ অর্থবর্ষে রাস্তার জন্য তাঁর সরকার ৫ হাজার ৭৪৭ কোটি টাকা বাজেটে বরাদ্দ করেছে।

রাজ্য জুড়ে আমপান সহ বিভিন্ন কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বহু গ্রামীণ রাস্তা। সেগুলিকে যানবাহন চলার উপযুক্ত করে তোলার জন্যই এই পথশ্রী অভিযানের সূচনা। এই উদ্বোধনের কাজ বৃহস্পতিবার থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত জেলায় ১২ হাজার কিলোমিটার রাস্তায় চলবে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পূর্ণ কাজ শেষ করে ফেলার নির্দেশও দেন মুখ মন্ত্রী। অনুষ্ঠানমঞ্চ থেকে মমতা জানান, ‘‌মহাত্মা গান্ধীর ১৫১তম জন্মদিবসের কথা মাথায় রেখে আমরা ১২ হাজার কিলোমিটার গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তবে সংস্কার হওয়া এই গ্রামীণ রাস্তাগুলিতে যাতে ভারী গাড়ি যাতায়াত করতে না পারে এবং রাস্তা তৈরির কাজ দেখভালের জন্য স্থানীয়দের উপর ভার দিয়েছেন মমতা। কাজের অগ্রগতির জন্য এলাকার জনপ্রতিনিধি ও বিধায়কদের বিশেষ দায়িত্বও দেওয়া হয়েছে নবান্ন তরফে। তাছাড়া সংস্কার হওয়া রাস্তার পরিস্থিতি তুলে ধরতে মুখ্য মন্ত্রীকে ছবি বা ভিডিও তুলে পাঠাতে পারবেন স্থানীয়রা। একইভাবে রাস্তা সংস্কারের কাজ কোনওভাবে বন্ধ থাকলে বা ঠিকঠাক ভাবে না হলে সিএম গ্রিভেন্স সেল অথবা দিদিকে বলো’তে গিয়ে সরাসরি অভিযোগ করতে পারবেন মানুষ। সেখান থেকে মুখ্য মন্ত্রী সরাসরি এ ব্যাপারে পদক্ষেপ করবেন বলে জানিয়েছেন। এবার উন্নয়নের কাজ নিশ্ছিদ্রভাবে শেষ করার জন্যই এমন কড়া পদক্ষেপ করছে নবান্ন।

 

Comments
Loading...