আত্মনির্ভর ভারতে নিজের সুরক্ষা নিজের হাতে, পরিসংখ্যান দিয়ে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মোদীকে কটাক্ষ প্রশান্ত কিশোরের

করোনা পরিস্থিতিতে কেন্দ্রকে একাধিকবার নিশানা করেছেন নির্বাচনী স্ট্র্যাটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোর, দিয়েছেন পরামর্শ। এবার ভারতের রাজ্যগুলির করোনা পজিটিভের পরিসংখ্যান তুলে ধরে মোদী সরকারকে একহাত নিলেন ২০১৪ এর লোকসভা ভোটে বিজেপির নির্বাচনী ছক কষে দেওয়া পিকে। তাঁর দাবি, ভারতের তিন রাজ্য তেলেঙ্গানা, মহারাষ্ট্র ও দিল্লির করোনা পরীক্ষার সংখ্যা এবং করোনা পজিটিভের হার ব্রাজিল ও চিলি ছাড়া সারা বিশ্বের মধ্যে সর্বাধিক।
মঙ্গলবার ট্যুইটে পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি দেখিয়েছেন তেলেঙ্গানায় গত সাতদিনে করোনা পজিটিভ টেস্টের হার গিয়ে ঠেকেছে ২৬.০৫ শতাংশে, মহারাষ্ট্রে ২১.৫৬ এবং দিল্লিতে প্রায় ১৮ শতাংশ। সারা ভারতে করোনা পজিটিভের হার ৮ থেকে ৯ শতাংশ। যা মার্চ মাসে ছিল ১.৫ শতাংশ।
ওই ট্যুইটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘আত্মনির্ভর ভারত’ ক্যাম্পেনকে তীব্র কটাক্ষ করে তৃণমূলের নির্বাচনী স্ট্র্যাটেজিস্ট লেখেন, করোনা নিয়ে সরকারের বিশ্লেষণ শুনতে থাকুন। তবে আত্মনির্ভর ভারতে আপনার সুরক্ষার জন্য আপনি নিজেই দায়বদ্ধ।

ট্যুইটে একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন প্রশান্ত কিশোর। সেখানে দেখা যাচ্ছে, করোনা সংক্রমণে শীর্ষে থাকা ভারতের ১৫ রাজ্যের তালিকা। তার সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে করোনা সংক্রমণ হারে শীর্ষে থাকা কিছু দেশের পরিসংখ্যান। তাতে বলা হয়েছে গত সাত দিনে তেলেঙ্গানায় করোনা টেস্টের সংখ্যা ২৫ হাজার ৪০৪ এবং করোনা পজিটিভের হার ২৬.০৫ শতাংশ। সব মিলিয়ে তেলেঙ্গানায় করোনা পজিটিভের হার ১৭.৪৯ শতাংশ। যা ব্রাজিল ও চিলির চেয়ে শুধু কম। ওই দুই দেশে করোনা পজিটিভের হার যথাক্রমে ৪৪.৫৮ এবং ২৫.১৯ শতাংশ এবং টোটাল কেস যথাক্রমে প্রায় ১৩ লক্ষ ৪৫ হাজার এবং ২ লক্ষ ৭২ হাজার। মহারাষ্ট্রে গত সাতদিনে করোনা টেস্ট হয়েছে প্রায় দেড় লক্ষ। যার মধ্যে পজিটিভের হার ২১.৫৬ শতাংশ। রাজধানী দিল্লিতে সাতদিনে ১ লক্ষ ৪৬ হাজার করোনা টেস্ট হয়েছে এবং পজিটিভের হার ১৭.৯৭ শতাংশ।
কিছুদিন আগে বাঙালি অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু দাবি করেছিলেন অচিরেই রাশিয়াকে ছাড়িয়ে করোনা সংক্রমিতের সংখ্যায় তৃতীয় স্থানে পৌঁছে যাবে ভারত। তা ঠেকানোর জন্য পেশাদারি পরিকল্পনার প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেছিলেন বিশ্ব ব্যাঙ্কের প্রাক্তন মুখ্য অর্থনীতিবিদ।
কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ১৮ হাজার ৬৫৩ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা সংক্রমিত হলেন ৫ লক্ষ ৮৫ হাজার ৪৯৩ জন। মহারাষ্ট্র, দিল্লি ও তামিলনাড়ু, দেশের মোট আক্রান্তের প্রায় ৬০ শতাংশ এই তিন রাজ্য থেকে। প্রশান্ত কিশোরের ট্যুইটও সেই দিকে ইঙ্গিত করে পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানাল, তিন রাজ্যে কী ভয়াবহভাবে বাড়ছে সংক্রমণ।

Comments
Loading...