দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী কে হবেন তা এখনই বলা সম্ভব নয়, বললেন বাবা রামদেব

বর্তমান দেশের রাজনৈতিক অবস্থা বেশ জটিল। তাই, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের পর কে হতে চলেছেন দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী তা এখনই বলা সম্ভব নয়, মন্তব্য রামদেবের। যদিও, মঙ্গলবার তামিলনাড়ুর মাদুরাইয়ে এই মন্তব্যের পর রামদেব পরিষ্কার জানিয়ে দেন, রাজনীতি তাঁর বিষয় নয়। তিনি এও জানান, ২০১৯-এর নির্বাচনে কোনও রাজনৈতিক দলকেই সমর্থন করছেন না।
রামদেবের এমন মন্তব্যে অনেকেই বিস্মিত হয়েছে। কয়েকদিন আগেই মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান এবং ছত্তিশগড়ে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হারের পরিপ্রেক্ষিতে রামদেব মন্তব্য করেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বদান ও বিচক্ষণতা নিয়ে কোন সংশয় থাকতে পারে না। মোদীর প্রশস্তি করে তিনি বলেছিলেন, মোদী একমাত্র নেতা যিনি ভোট-ব্যাঙ্ক রাজনীতি করেন না। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে তৎকালীন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত ছিলেন যোগগুরু। দেশের প্রধানমন্ত্রীর আসনে নরেন্দ্র মোদীকে দেখতে চান বলে তিনি জানিয়েছিলেন। মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে তাঁর একাধিক প্রকল্প এবং প্রস্তাবকে সমর্থন করে এসেছেন বাবা রামদেব। বিশেষত, দুর্নীতির বিরুদ্ধে মোদীর লড়াই, মোদী সরকারের আমলে নোটবন্দির ভুয়সী প্রশংশা করেছেন বিভিন্ন সময়ে। বিজেপি শাসিত হরিয়ানা রাজ্যের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর তিনি। যখনই হরিয়ানায় যান ক্যাবিনেট মন্ত্রীসুলভ সুবিধা পান রামদেব।
মাদুরাইয়ে গিয়ে যোগগুরু রামদেব বলেন, ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র করার চেষ্টা করতে হবে না। লক্ষ্য হওয়া উচিত ভারতকে আধ্যাত্মিক দেশ হিসেবে গড়া। যোগ ও বৈদিক চর্চার মিশ্রণে ভারতকে পবিত্র ও সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করাই সব ভারতীয়ের লক্ষ্য হওয়া উচিত। বর্তমান তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান কী, এই প্রশ্নের জবাবে যোগগুরু বলেন, তিনি সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আছেন, আবার কারও সঙ্গেই নেই।

Comments
Loading...