প্রণব মুখার্জির পর এবার রাহুল, সীতারামকে আমন্ত্রণ আরএসএসের?

গত জুন মাসে সংঘ প্রধান মোহন ভাগবতের আমন্ত্রণে নাগপুরে আরএসএস সদর দফতরে গিয়ে ভাষণ দিয়ে এসেছেন দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা প্রণব মুখোপাধ্যায়। যা নিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে কম বিতর্ক হয়নি। সূত্রের খবর অনুযায়ী, এবার দিল্লিতে আরএসএসের এক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পেতে চলেছেন খোদ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। পাশাপাশি একই অনুষ্ঠানে সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরিকেও আমন্ত্রণ জানাতে পারে আরএসএস।

আরএসএসের অনুষ্ঠানে প্রণব মুখোপাধ্যায়

সূত্রের খবর, আগামী ১৭ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর দিল্লির বিজ্ঞান ভবনে ‘দ্য ফিউচার অফ ভারত-আরএসএস পার্সপেক্টিভ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভার আয়োজন করতে চলেছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ। দু’দিন ব্যাপী এই সম্মেলনে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা হবে। বক্তব্য পেশ করবেন সমাজের বিশিষ্ট কিছু ব্যক্তি। আরএসএস ঠিক করেছে, ভিন্ন রাজনৈতিক দল, বিরোধী মতাদর্শ বিশিষ্ট মানুষ এবং বিভিন্ন ধর্মের প্রতিনিধিদের এই সম্মেলনে যোগদানের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হবে। এই অনুষ্ঠানেই কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর পাশাপাশি, সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরিকেও আরএসএস আমন্ত্রণ জানাতে চায় বলে খবর।
দু’দিন আগেই লন্ডনের মাটিতে দাঁড়িয়ে আরএসএস’কে আরব দুনিয়ার কট্টরবাদী সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুড-এর সঙ্গে তুলনা করেছেন রাহুল গান্ধী। আরএসএস এবং বিজেপি দেশে বিভাজনের রাজনীতি করছে বলেও তোপ দেগেছেন তিনি। এই অবস্থায় আরএসএসের তরফে তাদের কট্টর বিরোধী রাহুল গান্ধীকে আমন্ত্রণ জানানোর এই বিষয়টি সত্যি হলে তা নিঃসন্দেহে অন্য মাত্রা পাবে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

আমন্ত্রণ পেলেও রাহুল সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাবেন কিনা, তা নিয়েও জল্পনা তৈরি হয়েছে। এর আগে জুন মাসে যখন প্রণব মুখোপাধ্যায় আরএসএস সদর দফতরে ভাষণ দেওয়ার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছিলেন, তখন রাহুল গান্ধী নিজে না হলেও কংগ্রেসের একাধিক শীর্ষ নেতা প্রণববাবুর এই সিদ্ধান্তে হতাশা ও বিরক্তি প্রকাশ করেছিলেন। পাশাপাশি, সিপিএমের অন্দরেও সীতারাম ইয়েচুরি কট্টর আরএসএস বিরোধী বলেই পরিচিত। এমনকী বিজেপিকে ফ্যাসিস্ট বলা হবে কিনা তা নিয়ে যখন সিপিএমের অন্দরে বিতর্ক হয়েছে তখনও সীতারাম আরএসএস এবং বিজেপির তীব্র বিরোধিতা করেছেন। বিজেপি-আরএসএসের বিরুদ্ধে সব দলকে একত্রিত হয়ে লড়ার ডাক দিয়েছেন। তিনিও আমন্ত্রণ পেলে আদৌ সেখানে যাবেন কিনা তা নিয়েও সংশয় রয়েছে। তবে রাহুল গান্ধী, সীতারাম ইয়েচুরির মতো বিরুদ্ধ মতের রাজনৈতিক নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো আরএসএসের এক নয়া কৌশল বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

Comments
Loading...