সামনে লোকসভা ইলেকশন, শ্রীকান্ত মোহতার হাত ধরে শিল্পীরা যাতে রাজনৈতিক প্রচারে যেতে ভয় পান, তাই তাঁকে গ্রেফতারঃ রুদ্রনীল ঘোষ

বৃহস্পতিবার শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস এর কর্ণধার এবং প্রযোজক শ্রীকান্ত মোহতাকে গ্রেফতারের পর শুক্রবার সকালেই তাঁকে ভুবনেশ্বর নিয়ে গেল সিবিআই। সেখানে এদিন তাঁকে আদালতে তোলা হয়। চিট ফান্ড রোজভ্যালি প্রতারণা মামলায় শ্রীকান্ত মোহতাকে জেল হাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
বাংলা সিনেমার প্রযোজককে গ্রেফতারের পর স্বাভাবিকভাবেই দুশ্চিন্তায় টলি পাড়া। কিন্তু সিবিআই গ্রেফতারের ২৪ ঘন্টা কেটে গেলেও এবিষয়ে খুব একটা মুখ খুলছেন না শ্রীকান্তের কাছের মানুষেরা বা বাংলা চলচ্চিত্র জগতের লোকজন। তবে ব্যতিক্রম অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। শুক্রবার তিনি তাঁর ফেসবুক ওয়ালে ‘বন্ধু’ শ্রীকান্ত মোহতার পাশে দাঁড়িয়ে ইঙ্গিত করেছেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে, ফাঁসানো হচ্ছে প্রযোজক শ্রীকান্ত মোহতাকে। শ্রীকান্ত মোহতার সঙ্গে নিজের ছবিও ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছেন রুদ্রনীল।
সিংহভাগ কলাকুশলী যখন মুখে কুলুপ এঁটেছেন শ্রীকান্ত মোহতার গ্রেফতারি নিয়ে, তখন রুদ্রনীল ঘোষ ফেসবুক পোস্টে শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস কর্ণধারকে ‘বন্ধু’ বলে সম্বোধন করে লেখেন, ‘হ্যাঁ শ্রীকান্ত মোহতা আমার বন্ধু…তাঁর সাথে বন্ধুত্ব করতে সবাই ভীড় করতে চায়। সে ভীড়ে ধান্দাবাজ থেকে উদাসীন সব্বাই আছে!’ রুদ্রনীল লিখেছেন, ‘সামনে ২০১৯ লোকসভা ইলেকশান। শ্রীকান্ত মোহতার হাত ধরে শিল্পীরা যাতে ভয় পেয়ে রাজনৈতিক প্রচারে না যেতে পারে তার নিখুঁত প্ল্যান এটা!’
রুদ্রনীলের কথায়, ‘সফলতা যেমন সম্মান আনে। তেমন আনে শত্রু।’ টলিপাড়ার ‘ফার্স্টবয়’-এর অবদান ভুলে এখন তাঁর যে সমালোচনা শুরু হয়েছে তাকে তীব্র ভাষায় নিন্দা করেছেন রুদ্রনীল। তিনি লিখেছেন, ‘ইন্ডাস্ট্রির চরম ক্ষতির আশঙ্কা করেই তাঁর এই ফেসবুক পোস্ট। তিনি চিন্তিত টলিউডের কয়েক হাজার শিল্পী-টেকনিশিয়ানের জীবিকার কথা ভেবে। তবে প্রযোজকের গ্রেফতারি নিয়ে প্রথম সারির অভিনেতা-অভিনেত্রী, পরিচালকরা কোনও প্রতিক্রিয়া না দেওয়ায় ক্ষুব্ধ রুদ্রনীল। সিবিআই ‘জুজু’র ভয়ে কেউ মুখ খুলছেন না বলে অভিযোগ করেছেন অভিনেতা। রুদ্রনীলের আরও অভিযোগ, শ্রীকান্ত মোহতার হাত ধরে কোনও শিল্পী যাতে রাজনৈতিক প্রচারে যেতে না পারেন তাই এই ‘নিখুঁত’ বন্দোবস্ত। পাশাপাশি, যে সিবিআই এই দুর্নীতির তদন্তে নেমেছে, সেই সংস্থারও বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রুদ্রনীল ঘোষ। এই পোস্টের জেরেও যে তাঁর বিপদ হতে পারে তা জেনেও এই কথাগুলো লিখেছেন রুদ্রনীল। তিনি লেখেছেন, বন্ধুর বিপদে পিঠ বাঁচাতে শেখেননি তিনি। পাশাপাশি, তাঁর আবেদন ‘সুস্থ হোক রাজনীতি’।
রুদ্রনীল ঘোষের এই ফেসবুক পোস্টের পর অবশ্য পরিচালক সুদেষ্ণা রায়, বিরশা দাশগুপ্ত প্রমুখ কমেন্ট করে জানান, তাঁরাও পাশে রয়েছেন শ্রীকান্ত মোহতার।
অন্যদিকে, বিজেপির মহিলা মোর্চার রাজ্য সভানেত্রী এবং অভিনেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় প্রযোজক শ্রীকান্ত মোহতার গ্রেফতারি নিয়ে মুখ খুলেছেন। শুক্রবার বিজেপির রাজ্য দফতরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে লকেট বলেন, ‘শ্রীকান্ত মোহতা শিল্পীদের বাধ্য করতেন রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত হতে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও অনেককে যেতে হতো কাজ হারানোর ভয়ে। লকেটের কথায়, শ্রীকান্তের গ্রেফতারি দিয়ে টলিউডে স্বচ্ছতা অভিযান শুরু হল। তবে শ্রীকান্ত মোহতা নিয়ে বিশেষ প্রতিক্রিয়া দেয়নি তৃণমূল।

Comments
Loading...