সাবরীমালা ইস্যুতে কেরলে বাম জোটে নতুন চার দলের যুক্ত হওয়ার বিরোধিতা কেন করছেন সিপিএম নেতা অচ্যুতানন্দন, প্রশ্ন দলেই

২০১৯ নির্বাচনের আগে সাবরীমালা ইস্যুকে কেন্দ্র করে ক্রমে বদলাচ্ছে কেরলের রাজনৈতিক সমীকরণ। এরই মাঝে ক্ষমতাসীন সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফ জোটে নয়া চার দলের যোগদান ও নাম না করে তা নিয়ে ভি এস অচ্যুতানন্দের কটাক্ষ গোটা বিষয়কে নয়া মাত্রা দিয়েছে।
গত সেপ্টেম্বরে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছে, সাবরীমালা মন্দিরে সব বয়সী মহিলা প্রবেশ করতে পারবেন। কোর্টের এই নির্দেশকে সিপিএম নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন বাম জোট বা এলডিএফ স্বাগত জানালেও, বিরোধিতা করেছে বিজেপি। কংগ্রেসও মানুষের ভাবাবেগের কথা বলে এই ইস্যুতে কার্যত বিজেপির পাশেই দাঁড়িয়েছে। বিভিন্ন হিন্দু সংগঠন ও সাবরীমালা মন্দির কর্তৃপক্ষ শীর্ষ আদালতের নির্দেশের পরও মন্দিরে মহিলাদের প্রবেশ করতে দিতে রাজি নয়।
এরপর যতবারই মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টা করেছেন মহিলারা ততবারই বাধা দেওয়া হয়েছে তাদের। আক্রান্ত হয়েছেন বেশ কয়েকজন মহিলা সমাজ কর্মী ও সাংবাদিক।
এই পরিস্থিতিতে বিজেপিকে চাপে রাখতে কেরল সিপিএম আগামী ১ জানুয়ারি রাজ্যজুড়ে উইমেন্স ওয়াল নামে মহিলাদের মানব বন্ধন কর্মসূচি নিয়েছে। রাজ্যের প্রতিটি জেলা ছুঁয়ে যাবে এই মানব বন্ধন কর্মসূচি। কেরলের পরিচিত ও বিশিষ্ট ২২০ জন মহিলা ইতিমধ্যেই এই কর্মসূচিতে অংশ নিতে সম্মতি দিয়েছেন। এই কর্মসূচির পাল্টা হিসাবে হিন্দু সংগঠনগুলি গত বুধবার আয়াপ্পা জ্যোতি কর্মসূচি নেয়। যাকে সমর্থন জানায় বিজেপি।
চলতি বিতর্কের মধ্যেই বৃহস্পতিবার এলডিএফ জোটে যোগ দিয়েছে আরও চার দল। লোকতান্ত্রিক জনতা দল, ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লিগ, ডেমক্রেটিক কেরল কংগ্রেস ও কেরালা কংগ্রেস (বি)। শুক্রবার স্থানীয় দলিত নেত্রী সি কে জানু দেখা করেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নের সঙ্গে। তিনি জানিয়েছেন, তাঁর দল উইমেন্স ওয়াল কর্মসূচিতে অংশ নেবে।
তবে কেরলের বাম জোটে নয়া চার দলের অন্তর্ভুক্তিকে নাম না করে শুক্রবার কটাক্ষ করেন বর্ষীয়ান সিপিএম নেতা তথা রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভি এস অচ্যুতানন্দন। তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িকদের অন্তর্বর্তীকালীন আশ্রয় নেওয়ার জায়গা নয় এলডিএফ।
এতদিন কেরলে মূলত দুই জোটের মধ্যেই লড়াই ছিল। একদিকে বাম জোট এলডিএফ ও অন্যদিকে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ। কিন্তু কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি অনেকদিন ধরেই চাইছে দক্ষিণের এই রাজ্যে নিজেদের ঘাঁটি শক্ত করতে। সাবরীমালা ইস্যুকে কেন্দ্র করে কেরলে শক্তিবৃদ্ধি করছে তারা। সম্প্রতি বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ কেরলে গিয়ে জানিয়েছেন, বাম সরকারকে উৎখাত করে ছাড়বেন বিজেপি কর্মীরা।

Comments
Loading...