হার মানবে বলিউড থ্রিলার, পামেলা মাদক কাণ্ডে Double Agent!

গোটা ঘটনায় চরম অস্বস্তিতে বঙ্গ বিজেপি

এ যেন হিন্দি থ্রিলার সিনেমার টানটান দৃশ্যায়ন। বিজেপির যুব নেত্রী পামেলা গোস্বামীর কোকেন কাণ্ডের তদন্ত ক্রমেই রোমহর্ষক জায়গায় যাচ্ছে।

ধৃত বিজেপি নেতা রাকেশ সিংহ ৪ কোটি টাকার বিনিময়ে পামেলা ও অন্য এক ব্যক্তিকে বিধানসভা ভোটে টিকিট পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন!
এমনটাই উঠে এসেছে তদন্তে বলে জানিয়েছেন কলকাতা পুলিশের এক তদন্তকারী অফিসার।

পুলিশ সূত্রে খবর, শুক্রবার রাকেশ সিংহের এক সহযোগী পামেলা এবং ওই ব্যক্তিকে এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করাতে নিয়ে যাচ্ছিলেন, সেই সময় বিজেপি যুবনেত্রীকে নিউ আলিপুর থেকে কোকেন সহ গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশ। বৃহস্পতিবার আদালতের সামনে তদন্তকারীরা পামেলার সঙ্গে ওই দ্বিতীয় ব্যক্তির স্টেটমেন্ট রেকর্ড করার আর্জি জানিয়েছেন।

এক তদন্তকারী অফিসার জানান, আদালত তাঁদের আর্জি মেনে নিলে ১৬৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ওই ব্যক্তির গোপন জবানবন্দি নথিভুক্ত করা হবে ,যা এই কেসে প্রাথমিক প্রমাণ।

এখনও পর্যন্ত এই মামলায় কোনও আর্থিক লেনদেন হয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা।

[আরও পড়ুন- আজই রাজ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, পরিবর্তন যাত্রায় স্মৃতি ইরানি]

পুলিশি জেরায় পামেলা জানিয়েছেন, তাঁর গ্রেফতারির দিন, নিরাপত্তা রক্ষী এবং প্রবীর ছাড়াও এক ব্যক্তি ছিলেন গাড়ির সামনের সিটে। বিজেপি নেত্রীর দাবি, রাকেশ সিংহ ঘনিষ্ঠ ওই ব্যক্তি এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সঙ্গে পামেলাদের দেখা করতে নিয়ে যাচ্ছিলেন। ওই ব্যক্তি বলেন, গাড়ি দাঁড় করাতে, তারপর মন্ত্রীর পিএ-এর ফোন এসেছে বলে গাড়ি থেকে নেমে যান। ওই ব্যক্তি গাড়ি থেকে নেমে ফোন কানে নিয়ে কারও সঙ্গে কথা বলতে বলতে হাঁটতে থাকেন। কয়েক মুহূর্তের পামেলাদের গাড়ি ঘিরে ফেলে পুলিশ। পালিয়ে যান ওই ব্যক্তি।

রাকেশ ঘনিষ্ঠ ওই ব্যক্তির ফোনের কল রেকর্ড দেখে তদন্তকারীরা জানাচ্ছেন, ওই ব্যক্তি ঘটনার সময় কোনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর পিএ-এর সঙ্গে কথা বলছিলেন না, উনি ওই সময় রাকেশের আরেক ঘনিষ্ঠ জিতেন্দর সিংহের সঙ্গে ফোনে কথা বলছিলেন।

সবচেয়ে চোখ কপালে তোলার মতো ব্যাপার হল, পুলিশ জানতে পেরেছে, রাকেশ ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তি পামেলাকে আগেই সতর্ক করেছিলেন, রাকেশ সিংহ তাঁকে ড্রাগ বা অস্ত্র কেসে ফাঁসানোর পরিকল্পনা করছে। সেজন্য ওই ব্যক্তি পামেলাকে নিউ আলিপুর সহ শহরের ৪ টি থানা এলাকায় ঢুকতে মানা করে দিয়েছিলেন। পুলিশ সূত্রে খবর, সেই ব্যক্তিই আবার পুলিশকে ফোন করে পামেলার গাড়িতে কোকেন থাকার কথা জানান!
কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা মনে করছেন, ওই রহস্যময় ব্যক্তি ডবল এজেন্টের কাজ করেছেন।
গোটা ঘটনায় চরম অস্বস্তিতে বঙ্গ বিজেপি।

Comments
Loading...