অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস কেন? মহারাষ্ট্র বিধানসভার কাছে জানতে চাইল সুপ্রিম কোর্ট

রিপাবলিক টিভির সম্পাদক অর্ণব গোস্বামীর দায়ের করা মামলায় মহারাষ্ট্র বিধানসভাকে নোটিস পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট।
অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে কেন এবং কীভাবে প্রিভিলেজ মোশন বা স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস আনা হয়েছে, তার কারণ ব্যাখ্যা করতে বলা হয়েছে নোটিসে। সেপ্টেম্বরের শুরুতে সুশান্ত সিংহ রাজপূতের মৃত্যু রিপাবলিক টিভিতে প্রচারিত টিভি শোয়ে অর্ণব গোস্বামী মহারাষ্ট্রের মুখ্য মন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ও এনসিপি প্রধান শরদ পওয়ারের বিরুদ্ধে কিছু মন্তব্য করেন। সেই মন্তব্যের প্রেক্ষিতেই বিধানসভায় অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস দেওয়া হয়।
গত ৩০ সেপ্টেম্বর, বুধবার প্রধান বিচারপতি বোবদে, বিচারপতি বোপান্না ও বিচারপতি রামাসুব্রহ্মণ্যমের বেঞ্চের সামনে অর্ণব গোস্বামীর হয়ে সওয়াল করেন সিনিয়র আইনজীবী হরিশ সালভে।
শুনানিতে সালভে সওয়াল করেন, বিধানসভায় স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস দেওয়া যায় সভার কাজ পরিচালনায় বিঘ্ন ঘটালে। আমার মক্কেল অর্ণব গোস্বামীর কোনও মন্তব্যের জেরে কি বিধানসভা চলায় বিঘ্ন ঘটেছে? তাহলে অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস জারি হয় কীভাবে? প্রধান বিচারপতি বোবদে তখন বলেন, শারীরিকভাবে না হলেও কোনও মন্তব্যের জেরে কি সভা পরিচালনায় সমস্যা হতে পারে না? সেক্ষেত্রে সেই ব্যক্তির বিরুদ্ধে স্বাধিকারভঙ্গের প্রস্তাব আনা সম্ভব কি? সালভে উত্তরে জানান, যদি কেউ ঘেরাও করে কাজ বন্ধ করে দেন তাহলে স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস দেওয়া যায়। এক্ষেত্রে তা হয়েছে কি? বিচারপতিরা বলেন, প্রিভিলেজ মোশন আনার আগে তা নিয়ম মেনে প্রিভিলেজ কমিটির থেকে পাস করানো হয়নি বলেই মনে হচ্ছে। সালভে তখন বলেন, তাহলে তো মানহানির নোটিস দেওয়া যেতো। স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস কেন?
সেপ্টেম্বর মাসে অধিবেশন চলাকালীন এক শিবসেনা বিধায়ক সাংবাদিক অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস দিতে চান। তাঁর অভিযোগ ছিল, সুশান্ত মৃত্যু তদন্ত নিয়ে প্রচারিত অনুষ্ঠানে অর্ণব গোস্বামী রাজ্যের মুখ্য মন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ও এনসিপি প্রধান শরদ পওয়ারকে উদ্দেশ্য করে আপত্তিকর ভাষা এবং মনগড়া তথ্য পেশ করেছেন। তারপর বিধানসভা ৬০ পাতার স্বাধিকারভঙ্গের নোটিস পাঠায় অর্ণব গোস্বামীকে। সেই নোটিসের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন অর্ণব গোস্বামীর আইনজীবী হরিশ সালভে। মুম্বইকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের সঙ্গে তুলনা করার অভিযোগ অভিনেতা কঙ্গনা রানাউতের বিরুদ্ধে একইভাবে স্বাধিকারভঙ্গের প্রস্তাব আনা হয়েছিল মহারাষ্ট্র বিধানসভায়। অর্ণব গোস্বামীর আইনজীবী সালভে বেঞ্চকে জানিয়েছেন, অর্ণব গোস্বামীর আবার কোনও সমস্যা হলে তাঁরা আবার শীর্ষ আদালতের হস্তক্ষেপ চাইবেন।

Comments
Loading...