শুভেন্দু-রাজীবকে কালো পতাকা! বারুইপুরের সভা থেকে আনন্দবাজারকে বিঁধলেন মুকুল

শুভেন্দু ঘোষণা করেন পরের জনসভা করবেন কুলতলিতে

মঙ্গলবার বারুইপুরে বিজেপির জনসভা ও যোগদান মেলা হয়ে উঠেছিল কার্যত তৃণমূলের প্রাক্তনীদের মেলা। প্রত্যাশামতোই  যোগদান মেলায় ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল বিধায়ক দীপক হালদার বিজেপিতে যোগ দেন। মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সদ্য বিজেপিতে আসা রাজীব ব্যানার্জি। ছিলেন মুকুল রায়, শুভেন্দু অধিকারীর মত প্রাক্তন তৃণমূলের হেভিওয়েটরা।

এদিন বক্তৃতার শুরুতে আনন্দবাজার গোষ্ঠীকে কটাক্ষ করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি। আগের একটি জনসভায় মুকুল ব্যাট ছাড়ার কথা বলেছিলেন, মুকুলের ওই মন্তব্য নিয়ে তাঁর রাজনৈতিক সন্ন্যাসের জল্পনা উস্কে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে আনন্দবাজার পত্রিকা। এদিন মুকুল রায় বলেন ব্যাট যেমন ছাড়তে জানি, ধরতেও জানি। স্লগ ওভারে খেলা বাকি আছে।

মুকুল রায়ের পরে বক্তব্য রাখতে ওঠেন সদ্য প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জি। বক্তব্যের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে দেখা যায় প্রাক্তন তৃণমূল নেতাকে। সভায় আসার পথে শুভেন্দু এবং তাঁকে কালো পতাকা দেখানোর কথা উল্লেখ করে তৃণমূলকে এক হাত নেন তিনি। প্রাক্তন বনমন্ত্রীর দাবি তৃণমূল হতাশা থেকেই এসব করছে। তৃণমূল নেত্রীর সব ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধিতারও সমালোচনা করেন তিনি। তৃণমূল সুপ্রিমোর বহিরাগত তত্ত্বের জবাবে রাজীবের আক্রমণ ‘সাম্প্রদায়িকতার থেকেও বড় আগুন আপনি জ্বালাচ্ছেন, বিষ আপনি ঢালছেন’। কেন্দ্রের বিরোধিতা করে রাজ্যের মানুষের সঙ্গেই বেইমানি করেছেন বলে তীব্র আক্রমণ করেন তৃণমূল নেত্রীকে। 

সভার একেবারে শেষ লগ্নে বক্তব্য রাখতে ওঠেন শুভেন্দু অধিকারী। স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে নাম না করে তৃণমূলের যুব সভাপতি অভিষেক ব্যানার্জিকে চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করেন। এদিনের সভা থেকে অভিষেকের পরিবারকেও তীব্র আক্রমণ করেন নন্দীগ্রামের প্রাক্তন বিধায়ক। দর্শকদের একটি কাগজ দেখিয়ে শুভেন্দুর কটাক্ষ লালার টাকা ব্যাংককে জমা পড়েছে। সভামঞ্চ থেকে তাঁর চাঞ্চল্যকর অভিযোগ ভাইপোর পিএ ED থেকে মেসেজ পেয়েছে। বারুইপুরের সভা থেকে শুভেন্দু ঘোষণা করেন পরের জনসভা কুলতলিতে। সম্প্রতি কুলতলির সভা থেকে অভিষেক ব্যানার্জি শুভেন্দুকে ঘুষখোর বলে তোপ দেগেছিলেন।

Comments
Loading...