বিপুল ভোটে জিতছেন মমতা, মিথ্যাচারের জন্য ক্ষমা চান মোদী, দাবি তুলল তৃণমূল

নন্দীগ্রামের বয়ালের ঘটনা নিয়েও এদিন তৃণমূল সাংসদ সোচ্চার হয় তৃণমূল

কোথাও কোথাও বিজেপির গুন্ডারা এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী ভোটারদের ভয় দেখিয়েছে। দ্বিতীয় দফার নির্বাচন শেষে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে অভিযোগ করলেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায়। সেই সঙ্গে তাঁর দাবি, প্রতিকূলতা সত্ত্বেও উৎসবের মেজাজে ভোট হয়েছে। বিজেপি অশান্তি করার চেষ্টা করলেও সাধারণ মানুষ জনপ্রতিরোধ গড়ে তা রুখে দিয়েছেন।
নন্দীগ্রামের বয়ালের ঘটনা নিয়েও এদিন তৃণমূল সাংসদ সোচ্চার হন। সেই সঙ্গে তৃণমূলের তরফে আর একবার দাবি করা হয় নন্দীগ্রামে মমতা ব্যানার্জি বিপুল ভোটে জিতেছেন।
বিজেপি নেতারা দাবি করেছেন দ্বিতীয় দফার ভোটে গেরুয়া শিবির ৮০ টি ৯০ শতাংশ আসনে জিতেছে। তৃণমূলের কটাক্ষ, বিজেপি যদি ২০ থেকে ২৫%ও আসন পায় তাহলে নিজেদের ভাগ্যবান মনে করতে হবে ওদের।
প্রধানমন্ত্রী এদিনের জনসভা থেকে বলেছিলেন, কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে মমতা ব্যানার্জি হয়তো আরও কোনও আসন থেকে লড়তে পারেন। এদিন আরেকবার তৃণমূল নেতৃত্ব প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি করেন এবং সুখেন্দু শেখর রায়ের দাবি, প্রধানমন্ত্রীর উচিত বাংলার মানুষের কাছে ক্ষমা চাওয়া।

[আরও পড়ুন- ‘হারের ভয়ে দিশেহারা মমতা’, বলছেন জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী শুভেন্দু]

বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে স্বল্প সঞ্চয়ে সুদের হার কমানোর বিবৃতি জারি করে। বৃহস্পতিবার সকালে ভুল স্বীকার করে সেই বিবৃতি ফিরিয়ে নেওয়া হয়। তৃণমূল নেতা তথা দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী যশবন্ত সিনহা বলেন, ১ এপ্রিল দেশের মানুষকে এপ্রিল ফুল করেছে মোদী সরকার। তাঁর দাবি, পাঁচ রাজ্যের ভোট মিটলেই কেন্দ্রীয় সরকার ফের ওই নির্দেশ কার্যকরী করবে।

Comments
Loading...