কে আইনজীবী শ্রীরাম পঞ্চু, যাঁকে অযোধ্যা মামলার মধ্যস্থতার দায়িত্ব দিল সুপ্রিম কোর্ট

শুক্রবারই সুপ্রিম কোর্ট অযোধ্যা মামলায় মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ৩ জনের প্যানেল তৈরি করে দিয়েছে। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বেঞ্চ জানায়, সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ইব্রাহিম কলিফুল্লার নেতৃত্বে আর্ট অফ লিভিং খ্যাত শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর এবং সিনিয়র আইনজীবী শ্রীরাম পঞ্চু মধ্যস্থতার প্রক্রিয়া চালাবেন। কিন্তু জানেন কি, কে এই শ্রীরাম পঞ্চু?

১৯৫২ সালের ১৩ ই মার্চ তত্কালীন বম্বেতে জন্মগ্রহণ করেন শ্রীরাম পঞ্চু। পড়াশোনা তত্কালীন সেন্ট জনস স্কুল বম্বে ও হায়দরাবাদ পাবলিক স্কুলে। ১৯৭৩ সালে তত্কালীন বম্বের এলফিনস্টোন কলেজ থেকে স্নাতক হন তিনি। আইনের ডিগ্রি লাভ করেন বম্বে ল কলেজ থেকে। ১৯৯১ সালে সালজবার্গ সেমিনারে অংশ নেন, সেখানেই মধ্যস্থতার প্রথম পাঠ। ১৯৯৬ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেপারডিন ইউনিভার্সিটি ও আইসিএডিআরের যৌথ সহায়তায় আয়োজিত মধ্যস্থতার প্রশিক্ষণ শিবিরেও অংশ নেন তিনি। ২০০১ সালে ‘ইন্ডিয়ান সেন্টার ফর মিডিয়েশন অ্যান্ড ডিসপিউট রেসোলিউশনের’ প্রতিষ্ঠা করেন শ্রীরাম পঞ্চু। ২০০৫ সালে মাদ্রাজ হাইকোর্টের মিডিয়েশন অ্যান্ড কনসিলিয়েশন সেন্টারের প্রথম সাম্মানিক কার্যকরী সম্পাদক হন শ্রীরাম পঞ্চু। যা সারাদেশে প্রথম। তারপর থেকে একের পর এক মধ্যস্থতায় ডাক পড়েছে এই সিনিয়র আইনজীবীর। লিখেছেন একাধিক বই। মধ্যস্থতার নিয়ম-কানুন নিয়ে সারা পৃথিবীতে তাঁর নামডাক।

আদালত নিযুক্ত মধ্যস্থতার ক্ষেত্রে শ্রীরাম পঞ্চুকে দেশে পথিকৃৎ হিসেবে মনে করা হয়। সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট তাঁকে অসম ও নাগাল্যান্ডের মধ্যে ৫০ বছরের পুরনো বিবাদের মধ্যস্থতার দায়িত্ব দেয়। এছাড়া আদালতের নির্দেশে শ্রীরাম পঞ্চু মুম্বইয়ের পারসি পঞ্চায়েত বিবাদেরও মধ্যস্থতা করেছেন।

thebengalstory.com-এর তরফে শ্রীরাম পঞ্চুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘মাননীয় সুপ্রিম কোর্ট আমাকে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সর্বতোভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করব’। শুক্রবার মধ্যস্থতাকারীদের প্যানেলের নাম ঘোষণা করার সময় শীর্ষ আদালত শ্রীরাম পঞ্চুকে বিশিষ্ট প্রশিক্ষক ও দেশের অগ্রগণ্য মধ্যস্থতাকারী হিসেবে অভিহিত করে।

Comments
Loading...