বিজেপির খেলা শেষ, হাওয়া বুঝেই ওয়াকওভার, বাঘমুন্ডি থেকে তোপ দাগলেন অভিষেক ব্যানার্জি

পুরুলিয়া সহ জঙ্গলমহলে ২০১৯ এ লোকসভা ভোটের ফল বিজেপির পক্ষে ছিল

বৃহস্পতিবার প্রথম দফার নির্বাচনের প্রচারের শেষ দিন। প্রচারে ঝড় তুললেন যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক ব্যানার্জি। পুরুলিয়া জেলার বাঘমুন্ডি ও বান্দোয়ান বিধানসভায় জনসভা করেন তিনি। বাঘমুন্ডির জনসভা থেকে বিজেপিকে কটাক্ষ করে তৃণমূল সাংসদের মন্তব্য, বিজেপি বাঘমুন্ডিতে আগে থেকেই ওয়াক ওভার দিয়ে বসে আছে। ওদের খেলা শেষ। হাওয়া বুঝতে পেরে বিজেপি এই আসনটি আজসুরকে ছেড়ে দিয়েছে।
উল্লেখ্য, বিজেপি পুরুলিয়া জেলার এই আসনে প্রার্থী না দিয়ে তাদের জোটসঙ্গী আজসুরকে ছেড়েছে। পুরুলিয়া সহ জঙ্গলমহলে ২০১৯ এ লোকসভা ভোটের ফল বিজেপির পক্ষে ছিল। এদিন অভিষেক দাবি করেন, লোকসভায় ভোটে জেতার পরেও বিজেপি সাংসদ জোতির্ময় মাহাত এলাকার কোনও কাজ করেননি। বিজেপি নেতৃত্ব জেনে গেছে স্থানীয় লোক বিজেপি সাংসদের উপর ক্ষুব্ধ। তাই জোট সঙ্গীকে ছেড়েছে।
এদিন জোড়া জনসভা থেকে একাধিক ইস্যু নিয়ে বিজেপিকে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন তিনি। বিজেপির ইশতেহারকে অভিষেক ব্যানার্জি অডিও ক্যাসেট বলে দাবি করেছেন। তাঁর কটাক্ষ, বিজেপির ইশতেহার কানে শোনা যায় কিন্তু চোখে দেখা যায় না। বিজেপি প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়িত করে না দাবি অভিষেকের।

[আরও পড়ুন- পুরুলিয়া: পঞ্চায়েত, লোকসভার জয়ের ধারা কি বজায় রাখতে পারবে বিজেপি?]

জনসভা থেকে ফের তিনি ২০১৪ সালে নির্বাচনের আগে নরেন্দ্র মোদীর দেশ বাসীকে ১৫ লক্ষ টাকা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতির প্রসঙ্গ টেনে এনে বিজেপিকে একহাত নেন।
এদিনের জনসভা থেকে ফের একবার তিনি রাজ্য সরকারের কাজের খতিয়ান তুলে ধরেন। পাশাপাশি অন্যান্য সভার মত এদিনও ডায়মন্ড হারবারের সাংসদের দাবি লড়াইটা উন্নয়নের নিরিখে হোক। তাঁর চ্যালেঞ্জ, উন্নয়নের নিরিখে লড়াই হলে তৃণমূল বিজেপিকে ১০ গোলে হারাবে।
জোড়া জনসভার পাশাপাশি, বৃহস্পতিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনায় রোড-শো করেন তিনি। কামারপোল থেকে সরিষা ২৪৬ মোড় পর্যন্ত রোড-শো শেষে বক্তব্য রাখেন তিনি। নির্বাচন কমিশনের সরকারি আধিকারিকদের অপসারণের সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছেন। দিদির দূত লেখা গাড়িতে দাঁড়িয়ে অভিষেকের ঘোষণা, আগামী ২ মে বিজেপি নেতার ভোট বাক্সে পদ্মফুলের জায়গায় চোখে সর্ষে ফুল দেখবে।

Comments
Loading...