বিপাকে আদানি গ্রুপ, কয়লা সরবরাহ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত শুরু সিবিআইয়ের

ফের বিতর্কে আদানি গোষ্ঠী। এবার তাদের একটি সংস্থার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত শুরু করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ২০১০ সালে কয়লা সরবরাহের বরাত পাওয়া নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে আদানি গোষ্ঠীর আদানি এন্টারপ্রাইজের (Adani Enterprises) বিরুদ্ধে। এক দশক বাদে সেই অভিযোগের তদন্ত শুরু করল সিবিআই।

ঘটনাটি ২০১০ সালের। অন্ধ্র প্রদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী সংস্থা অন্ধ্র প্রদেশ পাওয়ার জেনারেশন কর্পোরেশনকে কয়লা সরবরাহ করবে কে, তা নিয়ে বিতর্কের সূত্রপাত। কয়লা সরবরাহকারী কে হবে তা স্থির করার ভার ছিল ন্যাশনাল কোঅপারেটিভ কনজিউমার্স ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া বা এনসিসিএফের হাতে। কয়লা সরবরাহ করার জন্য সেই সময় দরপত্র আহ্বান করে এনসিসিএফ। আর এখানেই ওঠে দুর্নীতির অভিযোগ। আরও একাধিক সংস্থার সঙ্গেই কয়লা সরবরাহের বরাত পেতে ঝাঁপায় আদানি এন্টারপ্রাইজও (Adani Enterprises)। বরাত পাওয়ার দৌড়ে শুরু থেকেই পিছিয়ে ছিল তারা। যদিও দেখা যায় মাপকাঠিতে সবদিক থেকে বাকিদের চেয়ে পিছিয়ে থেকেও শেষ হাসি হাসে গৌতম আদানির সংস্থাই। অভিযোগ বরাত পেতে দুর্নীতির পথ নেয় সংস্থাটি। নাম জড়িয়ে যায় বরাত প্রদানকারী সংস্থা এনসিপিএফের কয়েকজন শীর্ষ আধিকারিকেরও।

অভিযোগ, এনসিসিএফের কয়েকজন শীর্ষ আধিকারিক যোগ্যতামান পূরণ না করা সত্ত্বেও টেন্ডারের নিয়ম ভেঙে আদানির সংস্থাকে বরাত পাইয়ে দিয়েছেন। এখানেই শেষ নয়, অন্যান্য প্রতিযোগী সংস্থা বরাত পেতে যে হর হাঁকছে, তার বিবরণও আদানি এন্টারপ্রাইজের কাছে আগেভাগেই পৌঁছে দেওয়া হত বলেও অভিযোগ।

সিবিআই সূত্রে খবর, প্রাথমিক তদন্তের পর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনসিসিএফের শীর্ষ আধিকারিকদের চিহ্নিত করে ফেলেছে। ১৫ জানুয়ারি, বুধবার সিবিআই এই মামলায় এফআইআর দায়ের করে। সেই এফআইআর অনুযায়ী আদানি এন্টারপ্রাইজ, এনসিসিএফের তৎকালীন চেয়ারম্যান বীরেন্দ্র সিংহ, ম্যানেজিং ডিরেক্টর জি পি গুপ্ত এবং তৎকালীন সিনিয়র পরামর্শদাতা এস সি সিঙ্ঘলের বিরুদ্ধে প্রতারণা এবং ফৌজদারি ষড়যন্ত্রের মামলা দায়ের করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

আর এখানে সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা হল, সংস্থার বিরুদ্ধে সিবিআইয়ের মামলা দায়েরের দিনই নরেন্দ্র মোদী ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত গৌতম আদানি বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে। যদিও মন্ত্রক সূত্রে দাবি করা হয়েছে, এই দুই ঘটনা পরস্পর বিচ্ছিন্ন। কিন্তু বিরোধীরা অভিযোগ করতে ছাড়ছে না।

এর আগে সাবমেরিনের বরাত পাওয়া নিয়েও আদানি গোষ্ঠী মোদী ঘনিষ্ঠতাকে কাজে লাগিয়ে কাজ হাসিল করেছে বলে অভিযোগ করেছে কংগ্রেস। আর আদানি এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর কংগ্রেসের দাবি, এটা আই ওয়াশ মাত্র।

Comments
Loading...