১ বছরে বিজেপির সম্পত্তি বেড়েছে ২৭০ কোটির বেশি, ঋণে শীর্ষে কংগ্রেস, এডিআরের রিপোর্টে প্রকাশিত তথ্য

এক বছরের মধ্যে বিজেপির সম্পত্তি বেড়েছে ২৭০ কোটিরও বেশি। পাশাপাশি মূলধন ও রিজার্ভ ফান্ডের পরিমাণেও বাকি জাতীয় দলগুলোকে ছাপিয়ে গিয়েছে তারা। অন্যদিকে, আর্থিক বছরে ঋণের পরিমাণ সর্বোচ্চ কংগ্রেসের।
৩১ শে জুলাই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্রেটিক রিফর্মস (এডিআর) একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। বুধবার প্রকাশিত এই রিপোর্ট বলছে, ২০১৬-১৭ আর্থিক বছর থেকে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের মধ্যে দেশের ৭ টি জাতীয় রাজনৈতিক দলের সম্পত্তি ৬ শতাংশ হারে বেড়েছে।
২০১৬-১৭ আর্থিক বছরে জাতীয় দলগুলির মোট ৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকার সম্পত্তি ছিল। যা ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে বেড়ে ৩ হাজার ৪৫৬ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকায় পৌঁছেছে। তবে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্যভাবে সম্পত্তি বেড়েছে বিজেপির। ২০১৬-১৭ আর্থিক বছরে বিজেপির ১ হাজার ২১৩ কোটি ১৩ লক্ষ টাকার সম্পত্তি ছিল। যা ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে বেড়ে হয়েছে ১ হাজার ৪৮৩ কোটি ৩৫ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ, এক বছরের মধ্যে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দলের সম্পত্তি বৃদ্ধির পরিমাণ ২২.২৭ শতাংশ। অন্যদিকে, এই দুই আর্থিক বছরের মধ্যে কংগ্রেস ও ন্যাশানালিস্ট কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) সম্পত্তি যথাক্রমে ১৫.২৬ শতাংশ ও ৯.৫৪ শতাংশ কমেছে বলে এডিআরের রিপোর্টে প্রকাশ। এই এক আর্থিক বছরের মধ্যে তৃণমূলের সম্পত্তি বেড়েছে ১০.৮৬ শতাংশ। ২০১৬-১৭ আর্থিক বছরে তৃণমূলের মোট সম্পত্তির মূল্য ছিল ২৬ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা। ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে তা ২৯ কোটি ১০ লক্ষ টাকায় পৌঁছেছে।

২০১৬-১৭ আর্থিক বছর থেকে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের মধ্যে ঋণ বাদ দিয়ে, জাতীয় দলগুলির মূলধন ও রিজার্ভ ফান্ড ২ হাজার ৭৪৫ কোটি ৮১ লক্ষ টাকা থেকে বেড়ে ৩ হাজার ৮২ কোটি ৪ লক্ষ টাকা হয়েছে। এখানেও শীর্ষে বিজেপি। ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে বিজেপির মূলধন ও রিজার্ভ ফান্ডের পরিমাণ ১ হাজার ৪৬১ কোটি ৯৭ লক্ষ টাকা বলে জানিয়েছে তারা। ২০১৬-১৭ থেকে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের বিজেপির মূলধন ও রিজার্ভ ফান্ড বেড়েছে ২৬৮ কোটি ৮৭ লক্ষ টাকা।
এদিকে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম স্থানে কংগ্রেস। ২০১৬-১৭ আর্থিক বছর থেকে ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের ভেতর দেশের ৭ টি জাতীয় দলের গড় ঋণ ২৭.২৬ শতাংশ কমেছে। কংগ্রেসের ঋণের পরিমাণ ৪৬১ কোটি ৭৩ লক্ষ থেকে কমে ৩২৪ কোটি ২ লক্ষ টাকা হলেও, অন্য ৬ টি দলের মধ্যে সর্বোচ্চ ঋণ কংগ্রেসেরই। ২০১৬-১৭ ও ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের তুলনা করলে বিজেপি, সিপিআই ও বিএসপির গড় ঋণ আংশিক বৃদ্ধি পেয়েছে বলে এডিআর সূত্রে খবর।

Comments
Loading...