মহারাষ্ট্রে বিজেপি ও শিবসেনার জট অব্যাহত, আলাদা আলাদা করে রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ দুই দলের

এবারও মহারাষ্ট্র বিধানসভা ভোটে নিজেদের জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে বিজেপি ও শিবসেনা জোট। ২৮০ আসনের মহারাষ্ট্র বিধানসভায় বিজেপি পেয়েছে ১০৫ টি সিট এবং শিবসেনা ৫৬ টি। কিন্তু আসন সংখ্যা হাফ সেঞ্চুরি পেরোতেই শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে ৫০-৫০ ফর্মুলায় সরকার গড়ার ডাক দিয়েছেন। তাছাড়া, আদিত্য ঠাকরেকে অন্তত আড়াই বছরের জন্য মুখ্যমন্ত্রিত্ব দেওয়ার দাবি তো রয়েছেই। এই জটের প্রেক্ষিতে সোমবার আলাদাভাবে মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল ভগৎ সিংহ কোশিয়ারির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিজেপি ও শিবসেনা।
প্রথমে সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ মহাড়াষ্ট্রের রাজভবনে যান শিবসেনা নেতা দীবাকর রাওতে। এর ঠিক আধ ঘন্টা বাদেই রাজ্যপাল ভগৎ সিংহ কোশিয়ারির সঙ্গে দেখা করতে রাজভবনে উপস্থিত হন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফড়নবিস। যা নিয়ে তুঙ্গে উঠেছে বিজেপি-শিবসেনা জোটের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা।
যদিও বিজেপি বা শিবসেনা, দু’পক্ষেরই দাবি, রাজ্যপালকে দীপাবলির শুভেচ্ছা জানাতে গিয়েছিলেন তাঁদের নেতারা। এতে রাজনীতি খোঁজা বোকামি বলে প্রতিক্রিয়া দেন তাঁরা। যদিও গত বৃহস্পতিবার আদিত্য ঠাকরেকে অর্ধসময় মুখ্যমন্ত্রী করার জন্য বিজেপির কাছে শিবসেনার লিখিত প্রতিশ্রুতি চাওয়া এবং প্রতিশ্রুতি পূরণ না হলে ‘বিকল্প’ রাস্তা দেখার হুঁশিয়ারি থেকে সোমবার আলাদাভাবে রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ, সব মিলিয়ে বেশ রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। রবিবার দেবেন্দ্র ফড়নবিসের সঙ্গে একান্ত বৈঠক করেন নির্দল বিধায়ক গীতা জৈন। তিনি বিজেপিকে সমর্থনের আশ্বাস দিয়েছেন বলে খবর।
অন্যদিকে, দীপাবলির দিন শিবসেনার মুখপাত্র সামনায় আবারও আর্থিক মন্দা নিয়ে বিজেপিকে নিশানা করা হয়েছে। শোলে সিনেমার বিখ্যাত ডায়লগের অবতারণা করে সামনায় লেখা হয়, ‘ইতনা সান্নাটা কিঁউ হ্যায় ভাই?’ অর্থাৎ, এত চুপচাপ কেন সবাই? সব মিলিয়ে মহারাষ্ট্রে সরকার গড়া নিয়ে চূড়ান্ত নাটক জারি রয়েছে।

 

Comments
Loading...