কেন্দ্রের চাপেই কি সচিন-কোহলিদের টুইট! তদন্ত করবে উদ্ধব সরকার

কৃষক আন্দোলন নিয়ে তারকাদের টুইটের তদন্ত হবে বলে জানিয়ে দিল মহারাষ্ট সরকার। তারকাদের ওপর চাপ দিয়ে এইসব টুইট করানো হয়েছিল কিনা সেই বিষয়ে তদন্ত করে দেখবে মহারাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিভাগ। সাহায্য করবে মুম্বই পুলিশ। মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরের প্রশাসনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ জানিয়েছেন, একাধিক তারকার কৃষক আন্দোলন নিয়ে টুইটকে ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। রাজ্যে কংগ্রেস নেতারা এই বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করার পর তদন্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সোমবার মহারাষ্ট্রের কংগ্রেস নেতারা একটি অনলাইন বৈঠক করেছেন অনিল দেশমুখের সঙ্গে। সেই বৈঠকে তারকাদের টুইট করার প্রসঙ্গটি তোলা হয়। কেন্দ্রীয় সরকারের চাপে এইসব টুইট করা হয়েছিল কিনা, তদন্ত করে তা নিশ্চিত করতে চাইছেন মহারাষ্ট্রের কংগ্রেস নেতারা। ইতিমধ্যেই কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে টুইট করেছেন ক্রিকেটার সচিন, থেকে শুরু করে বলিউড তারকা অজয় দেবগন, সুনীল শেঠি, অক্ষয় কুমার, কিংবদন্তি লতা মঙ্গেশকর।

[আরও পড়ুন- দেশের উন্নয়নে বাধা সৃষ্টিকারী আন্দোলনজীবীদের উপড়ে ফেলতে হবে, বললেন নরেন্দ্র মোদী]

উদ্ধব ঠাকরের সরকার এবার এই টুইটগুলি নিয়েই তদন্ত করবে। অক্ষয় কুমার এবং সাইনা নেহওয়াল, সুনীল শেঠি টুইট করে একজন বিজেপি নেতাকে ট্যাগ করেছেন। এই বৈঠক থেকে কংগ্রেস নেতারা জানান, প্রত্যেকেরই নিজের মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে, কিন্তু এইসব টুইটের পিছনে কারোর চাপ ছিল কিনা, তা তদন্ত করা উচিত। কংগ্রেস নেতা শচীন সাওয়ান্ত জানিয়েছেন, প্রত্যেকেই টুইটে ‘অ্যামিকেবল’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন। যা নিয়ে সন্দেহ তৈরী হয়েছে।

দিল্লিতে কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে টুইট করেন পরিবেশবিদ গ্রেটা থুনবার্গ ও পপ গায়িকা রিহানা। এরপর পাল্টা টুইট করেন একাধিক ক্রীড়া এবং অভিনয় জগতের তারকারা। অভিযোগ এই তারকারা বিজেপির চাপের মুখে বাধ্য হয়ে এক বয়ানে ট্যুইট করেছেন। এবার তা নিয়েই তদন্ত হবে।

Comments
Loading...