টিকার দাম কমান! ভারত বায়োটেক ও সেরাম ইন্সটিটিউটকে বলল কেন্দ্র

কেন্দ্রের সুপারিশ টিকা উৎপাদনকারী সংস্থাগুলো রাখবে কি?

১ মে থেকে ১৮ বছরের উর্ধ্বে করোনার টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেও টিকার দাম নিয়ে প্রশ্নের মুখে কেন্দ্র! কেন বেশি টাকা দিয়ে রাজ্যগুলিকে টিকা কিনতে হবে? বেশ কয়েকদিন ধরেই জোর চর্চা চলছিল রাজনৈতিক মহলে। এই পরিস্থিতিতে এবার ভারত বায়োটেক এবং সেরাম ইনস্টিটিউটকে করোনা টিকার দাম কমাতে বলল কেন্দ্র।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কেন্দ্র ঘোষণা করে ১ মে থেকে ১৮ বছর ও তার বেশি বয়সীদের ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে। পাশাপাশি আরও জানায়, এবার থেকে খোলা বাজারে মিলবে ভ্যাকসিন।

টিকাকরণ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের নয়া পদক্ষেপের পর টিকা উৎপাদনকারী সংস্থাগুলিকে স্ব-নির্ধারিত মূল্যে রাজ্য সরকার এবং বেসরকারী হাসপাতালগুলিতে টিকা বিক্রি করার অনুমতি দিয়েছিল। এরপরই টিকা উৎপাদনকারী সংস্থা সেরাম ইনস্টিটউট জানায় রাজ্য সরকার আর প্রাইভেট হাসপাতালগুলি সরাসরি তাদের থেকে কোভিশিল্ড কিনতে পারবে যথাক্রমে ৪০০ ও ৬০০ টাকা খরচ করে।

অন্যদিকে ভারত বায়োটেক জানায়, রাজ্য সরকার আর প্রাইভেট হাসপাতালগুলি সরাসরি তাদের থেকে কোভ্যাক্সিন কিনতে পারবে যথাক্রমে ৬০০ ও ১২০০ টাকায়।

ভ্যাকসিনের দামের তারতম্য নিয়ে বিরোধী দলগুলি কেন্দ্রীয় নীতির তীব্র সমালোচনা করেছে। ভ্যাকসিনের দামকে হাতিয়ার করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মমতা ব্যানার্জিও। তিনি বলেন, একই দেশে কেন্দ্রীয় সরকার আর বাকি রাজ্যগুলির জন্য ভ্যাকসিনের দাম আলাদা কেন? একই প্রশ্ন করে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল। মোদীকে চিঠি দিয়ে এক দামের সওয়াল করেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে কার্যত চাপের মুখে পড়ে কেন্দ্র টিকা উৎপাদনকারী সংস্থাগুলিকে দাম কমাতে বলল। কিন্তু প্রশ্ন হল, কেন্দ্রের সুপারিশ টিকা উৎপাদনকারী সংস্থাগুলো রাখবে কি?

Comments
Loading...