মৃত্যু পথযাত্রী মায়ের শেষ ইচ্ছা, ১৩ বছরের কিশোরের বিয়ে ২৩ বছরের তরুণীর সঙ্গে

মৃত্যু পথযাত্রী মা-র শেষ ইচ্ছা রাখতে ১৩ বছরের কিশোরের বিয়ে দেওয়া হল ২৩ বছরের তরুণীর সঙ্গে। ঘটনাটি ঘটেছে অন্ধ্রপ্রদেশের কুন্নুর জেলার উপারাহাল গ্রামে। ওই গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ওই কিশোরের মা সবসময় চাইতেন, তাঁর মৃত্যুর পর অভিভাবক হিসাবে কেউ থাকুন ছেলের পাশে। তাই অনেক ভেবে-চিন্তে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবারটি। সোশ্যাল মিডিয়াতে এই ছবি ভাইরাল হওয়ার পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। কুন্নুর জেলার পুলিশ শনিবার সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছে, কিশোরটি নাবালক হওয়ার জন্য এই বিয়ে অবৈধ। তবে স্থানীয় বাসিন্দারা পুলিশকে জানিয়েছেন, এপ্রিল মাসের ২৭ তারিখ এই বিয়ের অনুষ্ঠান হয়। ওই মাসেরই ২৩ তারিখ থেকে পরিবারে নানা ধরনের পুজো-পাঠ চলছিল। ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরেই পলাতক পুরো পরিবার। কুন্নুর জেলার পুলিশ জানিয়েছে পরিবারটির খোঁজ চলছে। সংবাদসংস্থা সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, যে তরুণীর সঙ্গে ওই কিশোরের বিয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁরা কর্ণাটকের বেল্লারি জেলার চানিকান্নুর গ্রামের বাসিন্দা। নাবালক বিবাহের জন্য ইতিমধ্যেই কিশোরের পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছে পুলিশ। ১৩ মে বিশ্বজুড়ে পালন করা হয় মাতৃ দিবস। মাকে শ্রদ্ধা, সম্মান ও ভালোবাসা জানানোর জন্য নানা ধরনের অনুষ্ঠান করা হয়। কিন্তু মায়ের কথা রাখতে ২১ শতকের ডিজিটাল ভারতে এই অভিনব ‘বিবাহ অভিযান’ এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্যতম আলোচনার বিষয়।

Comments
Loading...