জি নিউজের সুধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা মহুয়া মৈত্রের, ২০ শে জুলাই তৃণমূল সাংসদের বয়ান রেকর্ড

জি নিউজের এক্সিকিউটিভ এডিটর সুধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করলেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। সোমবার দিল্লির একটি আদালতে এই মামলা দায়ের হয়। আগামী ২০ শে জুলাই মহুয়া মৈত্রের বয়ান রেকর্ড করা হবে।

গত ২৫ শে জুন লোকসভায় কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের প্রথম ভাষণ নিয়ে বিতর্কের সূত্রপাত। জি নিউজের এক্সিকিউটিভ এডিটর সুধীর চৌধুরী দাবি করেন, মহুয়া মৈত্রের প্রথম ভাষণ মৌলিক নয়, তা হুবহু টোকা অন্য একটি প্রতিবেদন থেকে। ট্যুইট করে এই দাবি করার পাশাপাশি মহুয়া মৈত্র ঠিক কীভাবে একটি মার্কিন প্রতিবেদন থেকে নকল করে লোকসভায় তা নিজের বলে চালিয়েছেন, তা নিয়ে একটি অনুষ্ঠানও সম্প্রচার করেন সুধীর চৌধুরী। মহুয়া মৈত্রের প্রথম ভাষণ নিয়ে সারাদেশে প্রশংসার জোয়ারের মধ্যেই সুধীর চৌধুরীর এই দাবিতে সাড়া পড়ে যায়। সুধীর চৌধুরী আরও দাবি করেন, মহুয়া মৈত্রের এই কাজে সংসদের গড়িমা ক্ষুণ্ণ হয়েছে। কিন্তু মহুয়ার পাশে দাঁড়িয়ে বিতর্কে জল ঢালেন মার্কিন ওয়েবসাইটে প্রতিবেদনটির লেখক। মার্টিন লংম্যান ট্যুইট করে সাফ জানিয়ে দেন, মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে তাঁর লেখা চুরির অভিযোগ মিথ্যে।

সোমবার মামলা দায়েরের পর মহুয়া মৈত্রের তরফে একটি বিবৃতি জারি করা হয়েছে। সেখানে তিনি লিখেছেন, যাঁরা ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল তথ্য পরিবেশন করেন, তাঁদের শাস্তি হওয়া উচিত। পাশাপাশি কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের দাবি, তিনি বাক্ স্বাধীনতাকে অত্যন্ত সম্মান দেন কিন্তু ভুয়ো খবরের অপরিসীম ক্ষমতাকে যথেষ্ট ভয়ও করেন।

ভাইরাল হয়ে যাওয়া মহুয়ার প্রথম দিনের ভাষণে ছিল ফ্যাসিবাদের ৭ লক্ষণের কথা। কিন্তু সুধীর চৌধুরী দাবি করেছিলেন মহুয়া আসলে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে উদ্দেশ্য করে লেখা প্রতিবেদন হুবহু টুকে দিয়েছেন। ট্রাম্পের নাম কেটে তিনি তাতে মোদীর নাম বসিয়েছেন মাত্র। কিন্তু ভাষণে মহুয়া উল্লেখ করেছিলেন, ফ্যাসিবাদের একাধিক লক্ষণ সম্বলিত আমেরিকার মিউজিয়মের হলোকাস্ট পোস্টার থেকে তিনি অনুপ্রাণিত। যে পোস্টার অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে মার্কিন সাংবাদিক তথা লেখক মার্টিন লংম্যানকেও।

এর আগে লোকসভায় জি নিউজের এক্সিকিউটিভ এডিটরের বিরুদ্ধে ভুয়ো খবর ছড়ানোর অভিযোগে স্বাধীকারভঙ্গের প্রস্তাব পেশ করেছিলেন মহুয়া মৈত্র। কিন্তু স্পিকার ওম বিড়লা সেই প্রস্তাব খারিজ করে দেন। তারপরই আদালতের দ্বারস্থ হন তৃণমূল সাংসদ।

সোমবার মামলার প্রথম শুনানিতে মহুয়া মৈত্রের আইনজীবী শাদান ফারাসাত বলেন, সাংসদ মহুয়া মৈত্রের বক্তৃতা আমেরিকার মিউজিয়ামে থাকা গণহত্যা সংক্রান্ত পোস্টার থেকে অনুপ্রাণিত৷ এই পোস্টারটিতে ফ্যাসিবাদের ১৪ টি লক্ষণের কথা বলা হয়েছে৷ শাদানের দাবি, মহুয়া মৈত্র তার মধ্যে থেকে ৭টি লক্ষণ বেছে নিয়ে ভারতের ক্ষেত্রে তার প্রাসঙ্গিকতা ব্যাখ্যা করেছেন৷ কিন্তু এর পরেও জি নিউজের তরফে একটি শো সম্প্রচারিত হয়, যেখানে সাংসদের বিরুদ্ধে লোকসভায় অন্য প্রতিবেদন থেকে টোকার অভিযোগ করেন সুধীর চৌধুরী৷ ২০ শে জুলাই মহুয়া মৈত্রের বয়ান রেকর্ড করা হবে বলে জানিয়েছে আদালত।

Comments
Loading...