হাওড়ায় দীপ্সিতা, দুর্গাপুরে ঐশী, সিপিএমের প্রার্থী তালিকায় JNU নেত্রীরা

তরুণ প্রজন্মকে সামনে রেখে লড়ার কৌশল বামেদের

শিয়রে বিধানসভা ভোট। প্রার্থী তালিকা নিয়ে চূড়ান্ত পর্বের আলোচনা চলছে সব দলের অন্দরেই। বামেরা এবার ঘোষিত ভাবেই অগ্রাধিকার দিতে চলেছে তরুণ প্রজন্মকে। আপাতত ঠিক হয়েছে ৪০ শতাংশ প্রার্থীর বয়স হবে ৪০ বছরের কম। সেই অনুযায়ী প্রার্থী বাছাইও প্রায় সেরে রেখেছে আলিমুদ্দিন। 

The Bengal Story বুধবারই জানিয়েছিল যে আসনে যে জিতেছেন, তিনি যদি এখনও সিপিএমেই থাকেন তাহলে তাঁকে টিকিট দেওয়া হবে। পাশাপাশি গতবার হেরে গেলেও তরুণ বাম নেতাদের এবারও ভোটে দাঁড় করাবে সিপিএম। 

সিপিএম সূত্রে জানা যাচ্ছে, এবার বাংলার ভোটে প্রার্থী হতে চলেছেন জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের বাঙালি নেতা নেত্রীরা। 

সূত্রের খবর, দুর্গাপুর আসনে লড়তে পারেন JNU ছাত্র সংসদের প্রেসিডেন্ট ঐশী ঘোষ। হাওড়ার কোনও আসন থেকে প্রার্থী হতে পারেন আরেক JNU প্রাক্তনী দীপ্সিতা ধর।

JNU-তে এবিভিপি ছাত্র সংগঠনের হামলার পরে দুর্গাপুরের মেয়ে ঐশীর নাম সংবাদ শিরোনামে উঠে আসে। ঐশীর বাবা দেবাশীষ ঘোষ বাম শ্রমিক সংগঠন সিটুর সদস্য। বাম পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা ঐশী পরিচিত সুবক্তা হিসেবে। কিছুদিন আগে বাম ছাত্র-যুব সংগঠনগুলোর নবান্ন অভিযানে মইদুলের মৃত্যুর প্রতিবাদে দিল্লিতে বঙ্গ ভবনের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচির নেতৃত্ব দেন ঐশী। 

JNU-এর প্রাক্তনী দীপ্সিতা ধরও সুবক্তা হিসেবে পরিচিত। বাংলায় বেশ কিছুদিন ধরেই বেশ সক্রিয় দীপ্সিতা ধর। বামেদের একাধিক মিটিং মিছিলে ঝাঁঝালো বক্তব্য রাখতে দেখা যাচ্ছে তরুণ নেত্রীকে। বক্তব্য রাখার পাশাপাশি বর্তমান কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারের সমালোচনায় তাঁর কলম সমান ভাবে সচল। একাধিক পত্রিকা, অনলাইন ম্যাগাজিনে দীপ্সিতা নিয়মিত লেখালেখি করেন। সম্প্রতি বাম ছাত্র-যুবদের নবান্ন অভিযানে একেবারে সামনের সারিতে ছিলেন দীপ্সিতা। পুলিশি লাঠির মুখেও সহকর্মীকে আগলে রাখার ছবি দীপ্সিতাকে আলাদা পরিচয় দিয়েছে। 

এবার হাওড়ার দীপ্সিতা এবং দুর্গাপুরের ঐশীকে নির্বাচনী লড়াইয়ে নামাতে চলেছে আলিমুদ্দিন। লক্ষ্য বাম ভোটকে আবার ঐক্যবদ্ধ করা। 

২০১৯ এর লোকসভায় বামেদের শোচনীয় ফল হয়েছিল। দেখার বিষয় তরুণ প্রজন্মকে সামনে রেখে বামেরা তাদের হারানো রাজনৈতিক জমি কতটা উদ্ধার করতে পারে।

Comments
Loading...