রবিবার সন্ধ্যায় দক্ষিণবঙ্গে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাষ, তবে তাপপ্রবাহ চলবে আরও দু’তিনদিন, জানাল আবহাওয়া অফিস।

কয়েকদিন ধরে তীব্র দাবদাহে কার্যত বিপর্যস্ত দক্ষিণবঙ্গের জনজীবন। তবে ভারতীয় আবহাওয়া দফতরের দৈনিক পূর্বাভাষে রবিবার সন্ধ্যের পর কিছুটা হলেও মিলতে চলেছে স্বস্তি। আগামী দু’তিন দিন তাপপ্রবাহের সতর্কতা জারি থাকলেও রবিবার সন্ধ্যায় কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বজ্র, বিদ্যুৎসহ ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বইতে পারে ঝড়ো হাওয়া। যার জেরে একটানা তীব্র গরমের পর মিলতে পারে কিছুটা স্বস্তি।
তবে পাকাপাকিভাবে তীব্র দাবদাহ থেকে এখনই রেহাই মিলছে না দক্ষিণবঙ্গবাসীর। আগামী দু’দিন তাপপ্রবাহের সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে এখনও জারি থাকছে তাপপ্রবাহের পূর্বাভাষ। এদিন সকালে কিছু এলাকায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাত হলেও কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০-৪২ ডিগ্রির কাছাকাছি ছিল বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। তবে বীরভূম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রামসহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছেছে।
তীব্র গরমে কার্যত নাজেহাল দক্ষিণবঙ্গের মানুষ। শনিবার তাপমাত্রার পারদ ছুঁয়েছিল ৪১ ডিগ্রি। যা এখনও পর্যন্ত এই মরশুমে সর্বোচ্চ। তীব্র দাবদাহের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে প্রচণ্ড আর্দ্রতা। যার ফলে কাহিল পড়ছেন সাধারণ মানুষ। তীব্র গরমের ফলে বাড়ছে শারীরিক অসুস্থতাও। রাস্তায় কাটা ফল বা সরবত খেতে নিষেধ করছেন চিকিৎসকরা। তীব্র গরমে সুস্থ থাকতে চিকিৎসকদের পরামর্শ, দিনে কম পক্ষে তিন লিটার জল এবং সহজ পাচ্য খাবার খাওয়ার। ভারতীয় আবহাওয়া দফতরের দৈনিক পূর্বাভাষ অনুযায়ী, আগামী  দু’দিন জারি থাকবে তাপপ্রবাহ। তবে স্বস্তির বার্তা, দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর রাজ্যে প্রবেশের রাস্তা ক্রমশ সুগম হচ্ছে।

Comments
Loading...