জয়েন্ট দিতে পারছেন না? প্রস্তুতি হয়নি ঠিক মতো? ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পাশে আছে জেআইএস

ওয়েস্ট বেঙ্গল জয়েন্ট এন্ট্রান্স একজামিনেশন দিতে চান? কিন্তু তার জন্য সঠিক গাইড লাইন পাচ্ছেন না বা জয়েন্টের ফর্ম ফিলআপ করতে পারেননি! ভাবছেন এবার কী হবে? কেরিয়ার পুরো শেষ? এক বছর পুরো নষ্ট!
নাহ্‌, একদমই নয়। যতক্ষণ হাতের সামনে আছে জেআইএস, ততক্ষণ কোনও চিন্তা নেই। ওয়েস্ট বেঙ্গল জয়েন্ট এন্ট্রাস একজামিনেশন ও তার পাশাপাশি সিইইএএমপিএআই-ডবলুবি ২০২০ দিয়েও অনায়াসে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পারবেন জেআইএস-এ। ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে জেআইএস। তারা সঠিক পথ দেখাচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীদের, কীভাবে পড়াশোনা করলে সহজেই কেরিয়ার করা যায়। কারণ, শুধুমাত্র সিলেবাস অনুযায়ী পড়াশোনা করলেই আজকের দিনে চলে না, সঙ্গে চাই সঠিক পদ্ধতি।


প্লেসমেন্ট ট্রেনিং, যা পাওয়া যায় জেআইএস-এ। জেআইএস-এর অভিজ্ঞ শিক্ষকদের দ্বারা সঠিক গাইডলাইন দেওয়া হয়ে থাকে ছাত্র-ছাত্রীদের।
জেআইএস গ্রুপের অধীনে যে সমস্ত ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ আছে, যেমন-নারুলা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি, গুরু নানক ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি, ডঃ সুধীর চন্দ্র শূর ডিগ্রি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, আসানসোল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, অ্যাবাকাস ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট, গ্রেটার কলকাতা কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট, জেআইএস ইউনিভার্সিটি-তে কম্পিউটার সায়েন্স পড়ানো হয়ে থাকে, বর্তমান বাজারে যার চাহিদা সবথেকে বেশি। এছাড়া জেআইসএস-এর অন্যান্য জায়গাগুলিতে সিভিল, মেকানিক্যাল, আইটি, অটোমোবাইল, ফুড টেকনোলজি, বায়ো-মেডিকেল, ও ফার্মাসি পড়ানো হয়ে থাকে।
জেআইএস-র জেআইএসই, এনআইটি, জেএনআইটি, ডিএসসিএসডিইসি, জিএনআইপিএসটি- এই কয়েকটি জায়গায় ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ৫০% আসন সংরক্ষিত থাকে শিখ সম্প্রদায়ের জন্য। কারণ, এই কলেজগুলি শিখ সম্প্রদায়ের দ্বারা পরিচালিত। তাই তারা আগে এখানে
অগ্রধিকার পাবে। এই সমস্ত কলেজে আলাদা একটি পরীক্ষা হয়ে থাকে, যা সিইইএএমপিএআই- ডবলুবি ২০২০ নামে পরিচিত। যে সমস্ত পড়ুয়া ওয়েস্ট বেঙ্গল জয়েন্ট এন্ট্রাস একজামিনেশন দিতে পারছে না, তারা এই পরীক্ষা দিয়ে অনায়াসেই এই কলেজগুলিতে ভর্তি হতে পারে। এই পরীক্ষাটিও ওয়েস্ট বেঙ্গল জয়েন্ট এন্ট্রাস একজামিনেশন-এর মতোই। তবে এতে কোনও নেগেটিভ মার্কিং থাকে না। এই নিয়ে সাত বার এই পরীক্ষটি হতে চলেছে। এবছর মে মাসে পরীক্ষাটি হবে। সমস্ত তথ্য পাওয়া যাবে www.amapi.in এ। অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফি ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এটি একটি সর্বভারতীয় পরীক্ষা। এর সম্পর্কে বিশদে জানার জন্য ৯০৭৩৩৭০৪৭০, ৯৩৩১৩২৬১২৪ এবং ৯৪৩২০১১৪৮৩ নম্বরে যোগাযোগ করতে পারে ছাত্র-ছাত্রীরা। বাকি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজগুলোর জন্য জয়েন্ট
অবশ্যই দিতে হবে।

Comments
Loading...