‘নন্দীগ্রাম থেকে ভোটে লড়ব,’ রাজনীতিতে ফের সক্রিয় হচ্ছেন মদন মিত্র, নেতাই থেকে খোলা চ্যালেঞ্জ শুভেন্দুকে

'এবার শুধু খেলব না, কোচিংও করাব', তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য মদনের

চিট ফান্ড মামলায় নাম জড়ানোর পর প্রায় দু’বছর জেলে ছিলেন মদন মিত্র। হারিয়েছেন মন্ত্রিত্ব। গত বছর ভাটপাড়া উপনির্বাচনে তৃণমূলের টিকিট নিয়ে রাজনীতিতে দ্বিতীয় ইনিংশ শুরু করতে চাইলেও শেষপর্যন্ত হারতে হয় বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের ছেলের কাছে। কিন্তু পদ হারিয়েও জনপ্রিয়তা অটুট মদনের। বিশেষত সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনদের আকর্ষণের কেন্দ্রে ছিলেন মদন। সামনে বিধানসভা ভোট। চলছে দলবদলের খেলা। এই প্রেক্ষিতে যেন ফের ফিনিক্স পাখির মতো করে রাজনীতির ময়দানে উঠে এলেন মদন মিত্র। লালগড়ের নেতাই দিবসের মঞ্চ থেকে তারই কিছু ঝলক দেখালেন রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী মদন মিত্র। ঠিক কী বললেন তিনি?
নেতাই দিবসের মঞ্চ থেকে বিজেপি নেতা শুভেন্দুকে রীতিমতো যুদ্ধের হুঁশিয়ারি দিলেন মদন। বিজেপি নেতাকে তাঁর খোলা চ্যালেঞ্জ, ‘এবার শুধু খেলব না, কোচিংও করাব। এমন কোচিং করাব শুভেন্দুও টের পাবে।’ সেই সঙ্গে মদনের আরও বার্তা, ‘নন্দীগ্রামে শুভেন্দু দাঁড়াক, দল অনুমতি দিলে আমি দাঁড়াব।’ শুভেন্দুকে তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘আমার সঙ্গে টক্কর নিতে আসবেন না। নেতাই থেকেই আমার যাত্রা শুরু হল’।
বৃহস্পতিবার সকালে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঝাড়গ্রামের নেতাইয়ে শহিদ দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। সেখান থেকে নিজের পুরনো দলকে কটাক্ষ করে তাঁর দাবি, তিনি কোনওদিন নেতাইয়ে রাজনৈতিক পতাকা, ব্যানার নিয়ে আসেননি। যাঁরা এতদিন আসেননি, তাঁদের ব্যানার এখন নেতাইয়ে দেখা যাচ্ছে।
এদিনই দুপুরে নেতাইয়ের সভা থেকেই শুভেন্দুকে তীব্র আক্রমণ শানালেন মদন। তাঁর কটাক্ষ, শুভেন্দুর নরকেও জায়গা হবে না। যে দলে দশটা বছর কাটালেন সেই দলের প্রতি তাঁর এখন ঘেন্না হচ্ছে! এদিন নেতাই থেকে কলকাতার তৃণমূল নেতাদের ‘বহিরাগত’ বলে কটাক্ষ করেন শুভেন্দু। আর দুপুরে সেখান থেকেই শুভেন্দুকে মদনের চ্যালেঞ্জ, সব ঠিক থাকলে আগামী ১৪ তারিখ শুভেন্দুর গড় কাঁথিতে সভা করব। দেখিয়ে দেব কার সভায় কত লোক হয়। সেই সঙ্গে কার মিছিলে কত লোক হয় তা নিয়েও চ্যালেঞ্জ করেন মদন। দলের কাছে মদনের আর্জি, ‘তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি এরপরের সভার দায়িত্ব আমাকে দিন। আমরা দুটো মিছিল বের করব। বাপের বেটা হলে মোকাবিলা করুক।’ বলেন, ‘দলের কাছে আবেদন করব আমাকে কিচ্ছু দিতে হবে না। শুধু ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর ও পূর্ব মেদিনীপুরের দায়িত্ব দেওয়া হোক।’ পার্থ চ্যাটার্জিরা অনুমতি দিলে সাতদিনে একবার ঝাড়গ্রামের মাটি ছুঁয়ে যাব বলে মন্তব্য মদনের।
দলবদলের মরসুমে তৃণমূল নেতৃত্ব যে মদনের মতো পুরনো নেতার উপরেই ভরসা করছে নেতাইয়ে ঝাঁঝালো ভাষণে যেন তারই ঝলক দেখালেন রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী। সেই সঙ্গে যে তিন জেলার সাংগঠনিক দায়িত্ব একসময়ে শুভেন্দুর ঘাড়ে ছিল, তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে সেই জেলাগুলির দায়িত্ব চেয়ে ফের রাজ্য রাজনীতিতে তিনি যে সক্রিয় হতে চান, সেই বার্তাও দিলেন মদন।

Comments
Loading...