যৌন হেনস্থার অভিযোগে গত দু’বছরে গুগল থেকে অপসারিত ৪৮ কর্মী, জানালেন সুন্দর পিচাই

কর্মস্থলে যৌন হেনস্থা নিয়ে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘মি টু’ ক্যাম্পেনের মাধ্যমে মুখ খুলতে শুরু করেছেন ভারতের মহিলারা। যাতে একে একে নাম জড়িয়েছে রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক, নায়ক, গায়কসহ তাবড় নামী ব্যক্তিত্বের। মার্কিন মুলুকে বছর খানেক আগেই ‘মি টু’ মুভমেন্ট শুরু হয়েছিল। এবার সামনে এল বিশ্বের সর্ববৃহৎ তথ্য প্রযুক্তি সংস্থা গুগলের অভ্যন্তরের যৌন হেনস্থার ঘটনা। যা প্রকাশ্যে আনলেন গুগলের বর্তমান সিইও সুন্দর পিচাই স্বয়ং।
ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, পিচাই জানিয়েছেন, যৌন হেনস্থার অভিযোগ ওঠায় গত দু’বছরে ৪৮ জন কর্মীকে বরখাস্ত করেছে গুগল। যাঁর মধ্যে রয়েছেন ১৩ জন সিনিয়র ম্যানেজার বা তার থেকেও বড় পদমর্যাদার আধিকারিক। এর আগে ২০১৪ সালে এই ধরনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে গুগল ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন অ্যানন্ড্রয়েড ফোনের স্রষ্টা অ্যান্ডি রবিন। বৃহস্পতিবার অন্য একটি সংবাদপত্রের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছিল, যৌন হেনস্থার অভিযোগে গুগল ছাড়ার সময় অ্যান্ডি রবিনকে এক্সিট প্যাকেজ হিসাবে ৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিয়েছিল গুগল। কিন্তু এই খবর অস্বীকার করা হয়েছে গুগলের তরফে। পিচাই জানিয়েছে, এই রিপোর্ট ‘ ডিফিকাল্ট টু রিড’। ওই
প্রতিবেদনে আরও দাবি করা হয়েছিল, আরও দুটি ক্ষেত্রে গুগলের অভ্যন্তরে যৌন হেস্থার অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু সেগুলো ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে। এই প্রতিবেদনের পরই ওয়াশিংটন পোস্টকে এক সাক্ষাৎকারে সংস্থার ৪৮ কর্মীকে শাস্তি দেওয়ার কথা জানিয়েছেন পিচাই।
পাশাপাশি,এই মর্মে গুগলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে একটি বার্তাও পাঠিয়েছেন সুন্দর পিচাই। যেখানে তিনি বলেছেন, যে সমস্ত অভিযুক্তকে যৌন হেনস্থা এবং মহিলাদের সঙ্গে অভব্য আচরণের অভিযোগে গত দু’বছরে বরখাস্ত করা হয়েছে তাঁদের কাউকে কোনও এক্সিট প্যাকেজ দেওয়া হয়নি। এই মেমো বার্তাটিতে পিচাইয়ের পাশাপাশি সই আছে গুগল ভাইস প্রেসিডেন্ট এলিন নঘটনেরও। কর্মীদের উদ্দেশ্যে পাঠানো এই মেমোতে বলা হয়েছে, তাদের সংস্থায় আচরণবিধি আরও কঠোরভাবে বলবত করা হয়েছে, এই ধরনের কোনও অভিযোগ উঠলে কাউকে রেয়াত করা হবে না। অন্যায়কে প্রশ্রয় দিলে যে গুগলের সুনাম নষ্ট হবে তাও বলা হয়েছে এই চিঠিতে।

Comments
Loading...