রিকশা চালিয়ে মনোনয়ন জমা TMC-র মনোরঞ্জন ব্যাপারীর, বলাগড়ে জয় নিশ্চিত, দাবি প্রার্থীর

কে বলেছে সাহিত্য চর্চা করলে রিকশা চালান যায় না? তিনি বলাগড়ের তৃণমূল প্রার্থী মনোরঞ্জন ব্যাপারী। মনোনয়ন জমা দিতে গেলেন রিকশা চালিয়ে। জানিয়ে দিলেন, যে লেখে সে রিকশাও চালায়।

শুক্রবার হুগলির চুঁচুড়ার ডিএম অফিসে মনোনয়ন জমা করেন তৃণমূল প্রার্থী মনোরঞ্জন ব্যাপারী। সাবলীল ভাবে রিকশা চালিয়ে ডিএম অফিসে ঢোকেন প্রার্থী। যা দেখে চমকে উঠেছেন উপস্থিত লোকজন।

মনোনয়ন জমার পর তৃণমূল প্রার্থী মনোরঞ্জন ব্যাপারী জানান, জীবনের শুরুতে রিকশাই ছিল আমার অবলম্বন। প্রথম জীবনে পেটের ভাত জোটাতাম সারাদিন রিকশা চালিয়ে। তাই শুক্রবার রিকশা চালিয়েই মনোনয়ন জমা দিতে যান তিনি। সঙ্গে দলের কর্মী সমর্থকরা। জয়ের ব্যাপারে ১০০ শতাংশ আশাবাদী মনোরঞ্জন ব্যাপারী। তিনি ভোটে জিতলে সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষের জয় হবে বলে মনে করেন দলিত সাহিত্যিক।

দলিত সাহিত্য আকাডেমির সভাপতি মনোরঞ্জন ব্যাপারীকে এবার হুগলির বলাগড় কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করেছে তৃণমূল। ছেলেবেলায় গরু চড়ানো থেকে শুরু করে চায়ের দোকানে কাজ বা রিকশা চালানো, পায়খানা পরিষ্কার, সবই করতে হয়েছে।

জন্মেছিলেন বাংলাদেশের বরিশালে। জ্ঞান হওয়ার আগেই মা বাবা তাঁকে নিয়ে চলে আসেন এপার বাংলায়। ছোটবেলা কাটিয়েছেন বাঁকুড়ার এক রিফিউজি ক্যাম্পে। বাঁকুড়ার ক্যাম্প থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ঘুটিয়ারি শরিফের ঘোলদলতলা রিফিউজি ক্যাম্পে কাটান ১৯৬৯ পর্যন্ত। এরপর ঘোলদলতলা থেকে মনোরঞ্জন ব্যাপারী ও তাঁর পরিবারকে চলে যেতে হয় দণ্ডকারণ্যে। ১৯৭৩ পর্যন্ত দণ্ডকারণ্যে থাকার পর তিনি কলকাতায় আসেন। সেই সময় থেকে যখন যা কাজ পেয়েছেন তাই করেছেন। রাতে প্ল্যাটফর্মে শুয়েছেন গামছা পেতে। নকশাল আন্দোলনে জড়িয়ে পড়ে গ্রেফতার হয়ে জেল খেটেছেন। সেখানেই জীবনের মোড় ঘুরে যায় মনোরঞ্জন ব্যাপারীর। জেলবন্দি এক নকশাল নেতার কাছে পড়াশোনা শেখেন মনোরঞ্জন ব্যাপারী।

তারপর শুরু তাঁর লেখার যাত্রা। একের পর এক বই লিখেছেন। তাঁর সৃষ্টি তোলপাড় ফেলে দিয়েছে সাহিত্য মহলে। দেশী-বিদেশি একাধিক পুরস্কার পেয়েছেন। ক্রমশ হয়ে উঠেছেন বাংলা দলিত সাহিত্যের মহীরুহ। এহেন মনোরঞ্জন ব্যাপারী প্রথমবার ভোটের ময়দানে। তৃণমূলের টিকিটে বলাগড় থেকে লড়বেন তিনি।

নাম ঘোষণার পর বলাগড় গিয়েই মনোরঞ্জন ব্যাপারী জানিয়েছিলেন, তিনি গরিব মানুষের প্রতিনিধি। সারা জীবন ধরে বিভিন্ন ভাবে জীবন সংগ্রাম লড়ে আজ জনপ্রতিনিধি হওয়ার দৌড়ে। কিন্তু নিজের অতীত ভোলেননি আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন দলিত সাহিত্যকার মনোরঞ্জন ব্যাপারী। আর তাই ভোটের ময়দানে নেমে, মনোনয়ন জমা করতে গেলেন নিজে রিকশা চালিয়ে। কিন্তু শেষ রক্ষা হবে কি? প্রার্থী সাহিত্যিক বলছেন, জয়ের ব্যাপারে তিনি ১০০ শতাংশ আশাবাদী।

 

 

 

Comments
Loading...