কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব বিরোধীদের, শুক্রবার আলোচনা।

বুধবার সংসদে বাদল অধিবেশনের প্রথম দিনই বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে চেয়ে স্পিকার সুমিত্রা মহাজনের কাছে নোটিশ দিল কংগ্রেস এবং তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি)। সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধীদলগুলির আনা এই অনাস্থা প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে। স্পিকার জানিয়েছেন, আগামী শুক্রবার বিরোধীদের আনা অনাস্থা প্রস্তাবের মুখোমুখি হবে সরকার। এদিন সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অনন্ত কুমার দাবি করেছেন, ‘সরকার অনাস্থা প্রস্তাবের চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত। সংসদে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা যেহেতু বিজেপির, তাই জেতা নিয়ে কোনও সংশয় নেই’।
বুধবার বাদল অধিবেশনের শুরুতেই কৃষক আত্মহত্যা এবং দেশজুড়ে বেড়ে চলা নারী নির্যাতনের ইস্যুতে লোকসভায় অনাস্থা প্রস্তাব আনে কংগ্রেস। পাশাপাশি বিশেষ আর্থিক প্যাকেজের সুবিধা থেকে বঞ্চিত অন্ধ্র প্রদেশ, এই দাবি জানিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের নোটিশ অধ্যক্ষের কাছে জমা দেয় টিডিপিও। এই দিন লোকসভায় কংগ্রেসের পক্ষে মল্লিকার্জুন খাগড়ে জানান, সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনা নিয়ে বিরোধী দলগুলির সাংসদদের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। অন্যদিকে, তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী জানিয়েছেন, শুক্রবার অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে সংসদে আলোচনা হবে। তবে ২১শে জুলাই তৃণমূলের শহিদ স্মরণ। সাংসদরা ব্যস্ত  থাকবেন প্রস্তুতির জন্য। তাই স্পিকারের কাছে তাঁরা আবেদন জানিয়েছিলেন দিনটি পরিবর্তন করার জন্য। কিন্তু সেই অনুরোধ রাখা হয়নি।
বুধবার সংসদে শুরু হল বাদল অধিবেশন। এদিন সরকারের বিরোধিতায় একযোগে সরব হন তৃণমূল কংগ্রেস এবং আরজেডি সাংসদরা। গো-রক্ষার নামে দেশজুড়ে গণপিটুনি নিয়ে আলোচনার দাবি তোলে কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস এবং সিপিএম। কেন্দ্রের কৃষিনীতি নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিরোধী দলের সাংসদরা। যদিও প্রবল হইচই এবং হট্টগোলের মাঝে সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অনন্ত কুমার জানিয়েছেন, এবারের বাদল অধিবেশনে মোট ৪৬ টি বিল আনা হবে। বাদল অধিবেশন শেষ হবে ১০ অগাস্ট।
এদিন তুমুল হট্টগোলের মধ্যে বাদল অধিবেশন শুরু হলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সাংবাদিকদদের মুখোমুখি হয়ে জানান, বিরোধী দলের সাংসদদের যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর দিতে প্রস্তুত সরকার। পাশপাশি অধিবেশন যাতে নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করা যায় তার জন্য আবেদন জানান তিনি।

Comments
Loading...