পঞ্চায়েত ভোটের পরও হিংসা অব্যাহত রাজ্যে, এবার হাওড়ায় খুন তৃণমূল কর্মী, অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে।

রাজ্যে অব্যাহত পঞ্চায়েত পরবর্তী রাজনৈতিক হিংসা। দুদিন আগেই কোচবিহারের মেখলিগঞ্জে খুন হয়েছিলেন এক সিপিএম কর্মী। গত সপ্তাহের তিন দিনের ব্যবধানে পুরুলিয়ার বলরামপুরে অস্বাভাবিক মৃত্যু হয় দুই বিজেপি কর্মীর। এবার সোমবার রাতে হাওড়ার বাগনানে খুন হলেন এক তৃণমূল কর্মী। ভোটের আগে থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় দফায়-দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। পঞ্চায়েত ভোটের দিন রাজনৈতিক হানাহানিতে মৃত্যু হয়েছিল বিভিন্ন দলের অন্তত ১১ জনের। ভোট মেটার পরও রাজ্যে সন্ত্রাস অব্যাহত।
সোমবার রাত ১০টা নাগাদ হাওড়ার বাগনানে খুন হন মহম্মদ মহসিন খান নামে এক তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাঁকে গুলি করে খুন করেছে। মৃত মহম্মদ মহসিন বাগনানের হাতুড়িয়া ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য নূরনেসা বেগমের স্বামী। জানা গেছে, তিন দুষ্কৃতী বাইকে চড়ে এসে তাঁর মাথা লক্ষ করে গুলি চালায়। ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। বেশ কয়েকটি দোকান ও ঘর ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। খুনের প্রতিবাদে ৬ নং জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা।
দুদিন আগেই কোচবিহারের মেখলিগঞ্জে খুন হয়েছিলেন সিপিএম কর্মী রমজান মিয়া। তাঁকে খুন করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। সিপিএমের অভিযোগ, মেখলিগঞ্জের জামালদহ এলাকায় একটি গ্রাম পঞ্চায়েত আসন জিতেছিল তারা। সেই পঞ্চায়েত দখল করার জন্যই এলাকার সিপিএমের সক্রিয় কর্মী রমজানকে খুন করা হয়েছে।
গত সপ্তাহে পুরুলিয়াতে ত্রিলোচণ মাহাতো এবং দুলাল কুমার নামে দুই বিজেপি কর্মীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বিজেপির অভিযোগের তির তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে। যা নিয়ে উত্তপ্ত হয়েছে রাজ্য রাজনীতি। ট্যুইটে ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানান বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। পাল্টা ট্যুইট করে ঘটনার পেছনে কারা জড়িত তার সঠিক তদন্তের দাবি জানান তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন। ঘটনা দু’টির তদন্ত করছে সিআইডি। যদিও পুলিশ জানিয়েছে, দুলাল কুমার আত্মহত্যা করেছেন। তাদের দুই কর্মীর রহস্য মৃত্যু নিয়ে ইতিমধ্যেই তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জড়িয়ে মামলা করেছে বিজেপি।
এবার পঞ্চায়েত ভোটের প্রক্রিয়া শুরু হওয়া মাত্রই উত্তপ্ত হয়েছে রাজ্যের পরিস্থিতি। বিরোধীরা বারবারই সন্ত্রাসের অভিযোগ করেছে শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পালটা অভিযোগ করেছে তৃণমূলও। এরই মধ্যে পঞ্চায়েত ভোট মিটলেও সন্ত্রাস থামার কোনও লক্ষণ নেই রাজ্যে। আগামী অগাস্ট মাসে পঞ্চায়েতের তিন স্তরে বোর্ড গঠন। তার আগে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলে রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা।

Comments
Loading...