পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে ফের হাইকোর্টে বিরোধীরা, মনোনয়ন জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে রাজ্যে সংঘর্ষ, মৃত্যু ২

পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে জটিলতা অব্যাহত। সোমবার সকালেই কমিশনের বিরুদ্ধে মামলা করার অনুমতি চেয়ে হাইকোর্টে বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের কাছে পিটিশন জমা করে কংগ্রেস। কংগ্রেসকে সমর্থন জানায় বিজেপি, পিডিএস এবং সিপিএমসহ বাম দলগুলি। হাইকোর্টে বিরোধীরা একযোগে অভিযোগ জানায়, রাজ্য নির্বাচন কমিশন হাইকোর্ট এবং সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশ মানছে না। আদালতের নির্দেশ ছিল কমিশন যেন সমস্ত মামলাকারী দলের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। কিন্তু কমিশন আদালতের সেই রায়কে মান্যতা দেয়নি। মামলাকারীদের পরামর্শ উপেক্ষা করে তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাই আদালত অবমাননার দায়ে তাঁরা ফের মামলা করতে চান। এরপর বিচারপতি তালুকদার সব দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে মামলা করার অনুমতি দেন। মূল পঞ্চায়েত মামলার সঙ্গে যুক্ত হবে এই মামলা। মঙ্গলবার ফের মামলার শুনানি হবে।
অন্যদিকে, সোমবার মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার অতিরিক্ত দিনেও অব্যাহত রইলো সংঘর্ষ। তৃণমূল- বিজেপি সংঘর্ষে রক্তাক্ত হল বীরভূমের সিউড়ি। সেখানে মৃত্যু হল একজনের। যদিও গুলিতে মৃত ওই ব্যক্তির রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক তরজা। শেখ দিলদার নামে ওই ব্যক্তিকে নিজেদের কর্মী বলে দাবি করেছে তৃণমূল এবং বিজেপি দুই শিবিরই। সিউড়ির পাশাপাশি উত্তর ২৪ পরগনার গোপালনগরে গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন একজন। মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া, মেদিনীপুরের চন্দ্রকোণা থেকে বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর পাওয়া গেছে। বহরমপুরে সোমবার সকাল এগারোটায় মনোনয়ন জমা দেবার আগেই শুরু হয়ে যায় ইটবৃষ্টি, বোমাবাজি। কংগ্রেস বিধায়ক মনোজ চক্রবর্তীকে বহরমপুরে রাস্তায় ফেলে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। সোমবার মনোনয়ন জমাকে কেন্দ্র করে দিনভর বিক্ষিপ্ত অশান্তি ও তার জেরে দুজনের মৃত্যুর ঘটনায় কমিশনের ব্যর্থতাকেই কাঠগড়ায় তুলছেন বিরোধীরা।

Comments
Loading...