ধনখড়ের ট্যুইটে হার্মাদ শব্দ! সিপিএমকে বলতেন মমতা, বুদ্ধদেব-চিদম্বরম জড়িয়েছিলেন বাদানুবাদে, বাংলায় কীভাবে এসেছে হার্মাদ?

রাজনীতির সমুদ্রে কত শব্দবন্ধই যে সাময়িক তোলপাড় ফেলে বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে যায় তার হিসেব কষা দায়। আবার কোনও কোনও শব্দ থাকে যার সামাজিকীকরণ ঘটে রাজনীতির ময়দান ছাড়িয়ে। বাংলার রাজনীতিতে এমনই এক শব্দ হার্মাদ। বাম আমলে সিপিএম বাহিনীকে হার্মাদ বলে নিশানা করত বিরোধীরা। তা এমনই জায়গায় পৌঁছেছিল, এই হার্মাদ শব্দ নিয়ে তীব্র সংঘাতে জড়িয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এবং দ্বিতীয় ইউপিএ সরকারের মন্ত্রী পি চিদম্বরম।
বিরোধী নেত্রী মমতা ব্যানার্জি সিপিএমের সশস্ত্র বাহিনীকে বোঝাতে হার্মাদ শব্দটিকে খবরের কাগজের পাতা থেকে টেনে নামান রাজপথে। ২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদলের সঙ্গেই হার্মাদ শব্দটিরও আপাত সমাধি হয়। প্রায় এক দশক বাদে, বাংলায় যখন আবার ভোটের পদধ্বনি, সেই সময় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের ট্যুইটে আবার ফিরে এল হার্মাদ শব্দ।

স্প্যানিশ আর্মাডা থেকে বাংলায় হার্মাদ শব্দটি এসেছে বলে মনে করা হয়। কিন্তু কীভাবে তা এল বাংলায়? সেকালে পর্তুগিজ জলদস্যুদের রমরমা। ছোট ছোট নৌকায় আদি গঙ্গায় অবধি তাদের দৌরাত্ম্য বাঙালির মনে স্থায়ী আসন নিয়েছে। সেই দস্যুদের বোঝাতে কথ্য বাংলায় আবির্ভাব হয় হার্মাদ শব্দের। ব্যবহারিক ক্ষেত্রে সশস্ত্র বাহিনীকে বোঝাতে হার্মাদ শব্দ প্রয়োগ করা হোত।
বর্তমান পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক বরুণ সেনগুপ্ত সিপিএমের সশস্ত্র বাহিনীর কার্যকলাপ এক কথায় বোঝাতে ব্যবহার করেন হার্মাদ শব্দটি। ব্যলা যেতে পারে বরুণ সেনগুপ্তর হাত ধরেই হার্মাদ শব্দের ব্যাপক প্রচলন হয়। সিপিএম বাহিনীকে বোঝাতে তৎকালীন বিরোধী নেত্রী মমতা ব্যানার্জি বারবার ব্যবহার করতেন হার্মাদ শব্দ। নন্দীগ্রাম, লালগড় পর্বে বারবারই হার্মাদ শব্দ উঠে আসে রাজ্য-রাজনীতিতে। এমনকী লালগড় আন্দোলনের সময় পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনি থেকে ঝাড়গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় মাওয়িস্টদের মোকাবিলায় সিপিএম যে ক্যাম্প করেছিল, সেগুলিকে হার্মাদ ক্যাম্প উল্লেখ করে তীব্র আন্দোলনে নামেন মমতা ব্যানার্জি। আর এর সূত্র ধরেই এই হার্মাদ ক্যাম্প নিয়ে তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এবং চিদম্বরম।
তৎকালীন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরম ২০১০ সালের শেষে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে চিঠি লিখে জঙ্গলমহলে হার্মাদ ক্যাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেন। হার্মাদ শব্দ নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়ে পাল্টা চিঠি লেখেন বুদ্ধদেববাবু।
২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে রাজ্যের শাসক দলের গুণ্ডা বাহিনীকে বোঝাতে মেয়াদ ফুরনো শব্দ হার্মাদকে পুনরায় রাজনীতির ময়দানে ফিরিয়ে আনলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। যদিও রাজনৈতিক নেতাদের ব্যবহার করা শব্দ কেন রাজ্যপালের বয়ানে তা নিয়ে কোনও প্রশ্ন এখনও ওঠেনি।

Comments
Loading...