শালবণিতে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, তৃণমূলের দিকে অভিযোগ বিজেপির, অস্বীকার শাসক দলের

ভোটের আগে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার। অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগে উত্তপ্ত মেদিনীপুরের শালবণি। মৃতের নাম লালমোহন সরেন, বাড়ি বাগমারির জোড়া কুশমি গ্রামে। গত চারদিন নিঁখোজ থাকার পর শুক্রবার বাড়ি থেকে ৫০০ কিমি দূরে গাছের মধ্যে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। মৃত ব্যক্তিকে নিজেদের সমর্থক বলে দাবি করে বিজেপির অভিযোগ, খুন করে ঝুলিয়ে দিয়েছে তৃণমূল। অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। বিজেপির অভিযোগ, গত কয়েকদিন ধরে এলাকায় অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করছে তৃণমূল। পোস্টার ছিঁড়ে দেওয়া থেকে শুরু করে কার্যালয় ভাঙচুর, হারের ভয়ে তৃণমূল অরাজকতা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ বিজেপির। লালমোহন কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না বলে দাবি স্ত্রী ফুলমনির। মাত্র তিনমাস আগে বিয়ে হয়েছিল তাঁদের। মৃত্যুর পিছনে পারিবারিক কারণ আছে দাবি তৃণমূলের।

[আরও পড়ুন- ২৭ মার্চ প্রথম দফায় পুরুলিয়ার সব আসনে ভোট, ২০১৬, ২০১৯ সালে কী ফল ছিল?]

পুলিশ সূত্রে দাবি, শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন লালমোহন সরেন। তারপর আর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। লালমোহনের মৃত্যুর খবর পাওয়ার পরই তাঁর বাড়ি যান বিজেপি নেতারা।

এ বিষয়ে দিলীপ ঘোষ কটাক্ষ করে বলেছেন, খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়ার খেলা শুরু করেছে তৃণমূল। তৃণমূল জেলা সভাপতি অজিত মাইতি দাবি করেছেন, বিজেপির সঙ্গে মৃতের কোনও যোগ ছিল না। সস্তার রাজনীতি করছে বিজেপি।

Comments
Loading...