ইঞ্জিনিয়র ও স্নাতকোত্তর কয়েদি দেশে সবচেয়ে বেশি উত্তর প্রদেশে, বিয়েতে পণ না পেয়ে স্ত্রীর ওপর অত্যাচারের অভিযোগ বেশিরভাগের বিরুদ্ধে

নানা অপরাধমূলক ঘটনায় বারবার খবরের শিরোনামে আসে উত্তর প্রদেশের নাম। কিন্তু জানেন কি, যোগী রাজ্যের জেলে ডিগ্রিধারী অপরাধী বন্দির সংখ্যাও দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি?
হ্যাঁ, ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো বা NCRB এর ‘ক্রাইম ইন ইন্ডিয়া’ শীর্ষক রিপোর্টে এমনই তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। কেন্দ্রের এই রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ভারতীয় জেলগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিক্ষিত অপরাধী রয়েছে যোগী রাজ্যের কয়েদখানায়। রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, দেশজুড়ে মোট ৩ হাজার ৭৪০ জন কয়েদির টেকনিক্যাল ডিগ্রি অথবা ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা আছে। আর তার ২০ শতাংশ বা মোট ৭২৭ জনই উত্তর প্রদেশের বিভিন্ন জেলে বন্দি। শুধু তাই নয়, যোগী রাজ্যে জেলখানাগুলিতে পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কয়েদির সংখ্যা ২ হাজার ১০ জন। যেখানে সারা দেশের জেলখানায় স্নাতকোত্তর থাকা কয়েদির সংখ্যা ৫ হাজার ২৮২ জন।
উত্তর প্রদেশের ডিজি (কারা) আনন্দ কুমারের কথায়, এ রাজ্যে একটা বিশাল সংখ্যক টেকনটিক্যাল গ্র্যাজুয়েট হয় দোষী সাব্যস্ত হয়ে জেলে রয়েছে, নয়তো কোনও অভিযোগের প্রেক্ষিতে বন্দি আছে। এদের বিরুদ্ধে সাধারণ যে অভিযোগ রয়েছে তা হল, পণ না পেয়ে বধূহত্যা এবং ধর্ষণের। এছাড়া কয়েকজনের বিরুদ্ধে রয়েছে আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগও।
তথ্য বলছে, সারা দেশে মোট ৩ লক্ষ ৩০ হাজার ৪৮৭ জন কয়েদি রয়েছে। এদের মধ্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীর সংখ্যা ১.৬৭ শতাংশ এবং ১.২ শতাংশ ইঞ্জিনিয়র! এমন ডিগ্রিধারী ও ইঞ্জিনিয়র কয়েদি সবচেয়ে বেশি উত্তর প্রদেশে। যোগী রাজ্যের পর সবচেয়ে বেশি ‘ডিগ্রিধারী জেলবন্দি’ রয়েছে মহারাষ্ট্রে। এই তালিকায় তারপরে রয়েছে কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান ও তেলেঙ্গানা রাজ্য।
উত্তর প্রদেশের ডিজি (কারা) আনন্দ কুমার জানাচ্ছেন, জেলের ভিতর প্রযুক্তি সংক্রান্ত কাজে বেশ সাহায্য করে এই ইঞ্জিনিয়ারিং কয়েদিরা। তাদের জন্যই ই-প্রিজন মডিউল তৈরি সম্ভব হয়েছে। অনেকে আবার জেলের ভিতর রেডিও চালু করা, কম্পিউটার সারাইয়ের কাজ করে থাকে।

Comments
Loading...