কে এই কলেজ ড্রপ আউট কুণাল কামরা, যাঁর প্রশ্নের মুখে নিরুত্তর সাংবাদিক, সম্পাদক থেকে শাসক?

মুম্বই থেকে লখনউ যাওয়ার পথে মঙ্গলবার বিমানে কুণাল কামরার মুখে পড়েছিলেন অর্ণব গোস্বামী। যে ভিডিও নিয়ে তোলপাড় দেশ। ইতিমধ্যেই ইন্ডিগো সহ একাধিক বিমান সংস্থা কুণাল কামরার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ফেলেছে। এরই মধ্যে বুধবার লখনউ থেকে ফেরার পথে ফের কুণালের সঙ্গে একই বিমানে অর্ণব গোস্বামী! ফিরতি পথে মাঝ আকাশে কী হল?
না, এবার আর বিপত্তি কিছু হয়নি। বুধবার সকাল পৌনে ১১ টা নাগাদ ট্যুইট করে এই খবর দেওয়ার পাশাপাশি কুণাল কামরা জানান, এবারও তিনি অর্ণব গোস্বামীর কাছে গিয়ে মোলায়েমভাবে একটি অন্তত আলোচনায় অংশ নেওয়ার আর্জি রাখেন। কামরার দাবি, অর্ণব তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গীতে হাতের ইশারায় তাঁকে সেখান থেকে সরে যাওয়ার আবেদন করেন। কুণাল বিনা বাক্যব্যয়ে তাই করেন।

কিন্তু জানেন, কে এই কুণাল কামরা? উইকিবায়ো থেকে জানা যাচ্ছে, ১৯৮৮ সালের ২ অক্টোবর মুম্বইয়ে জন্ম তাঁর। বাবার ওষুধের দোকান। মুম্বইয়েরই একটি স্কুল থেকে পাশ করার পর জয়হিন্দ কলেজে কর্মাস পড়তে ভর্তি হন কুণাল কামরা। কিন্তু মাঝ পথেই পড়া ছেড়ে শিক্ষানবিশ হিসেবে যোগ দেন এমটিভিতে। বছরখানেকের মধ্যে সেই কাজও ছেড়ে দেন কুণাল কামরা। তারপর যোগ দেন প্রসূন পাণ্ডের প্রোডাকশন হাউসে। সেখানে টানা ৬ বছর কাজ করেন কুণাল কামরা।
সেকেন্ড ইয়ারে কলেজ ছাড়লেও, কুণাল কামরা তা বাড়িতে জানাননি। বছর তিনেক চাকরি করার পর তিনি কলেজ ড্রপ আউটের কথা বাড়িতে জানান। সেই সময় কুণালের মাসিক বেতন ছিল ৩৫ হাজার টাকা।
২০১৩ সালে কাজের একঘেয়েমি কাটাতে কুণাল ফের চাকরি ছাড়েন। বন্ধু সিদ্ধার্থ দুদেজার পরামর্শে মন দেন কমেডিতে। সে বছরই আসে তাঁর প্রথম স্ট্যান্ডআপ কমেডি ব্লু ফ্রগ। তারপর থেকে মুম্বইয়ের ক্যানভাস ক্লাবে নিয়মিত পারফর্ম করতে শুরু করেন কুণাল।
২০১৭ সালে কুণাল শুরু করেন তাঁর পডকাস্ট সিরিজ ‘শাটআপ ইয়া কুণাল’। সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে কুণাল কামরার নাম। শাটআপ ইয়া কুণালে জেএনইউয়ের পড়ুয়াদের নিয়ে হয়েছিল, তা রিলিজ করার ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ভিউয়ার সংখ্যা ছাপিয়ে যায় ১.১ মিলিয়নের গন্ডী। সেই পডকাস্টে যেমন এসেছেন অ্যাঙ্কর রবীশ কুমার তেমনই এসেছেন বিজেপির আইটি সেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, ছাত্র নেতা কানহাইয়া কুমার কিংবা বিজেপির নেত্রীরাও। তবে কুণালের খ্যাতি প্রবল বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে নির্ভেজাল হাস্যরসে ভেজানো বিজেপি বিরোধী ভাবমূর্তির জন্যই। এবং একথা কুণাল নিজেও প্রকাশ্যে স্বীকার করেন। তাঁর মুখের ভাষাও এই প্রজন্মের সঙ্গে মানানসই।
অনেকেই বলেন, বর্তমান ভারতে সংবাদমাধ্যমের কাজ স্ট্যান্ডআপ কমেডির মাধ্যমে করছেন কুণাল কামরা, সঞ্জয় রাজৌরা, আকাশ ব্যানার্জি কিংবা বরুণ গ্রোভাররা। কারণ, শাসককে প্রশ্ন করতে তাঁদের গলা কাঁপে না।
বাইক নিয়ে অসম্ভব প্যাশনেট কুণাল কামরা নিজে চালান একটি রয়েল এনফিল্ড হিমালয়ান। প্রিয় কমেডিয়ান ডগলাস স্ট্যানহোপ, লুইস সিকে, বিল বার।
চাকরিতে যোগ দেওয়ার পর কুণাল থাকতে শুরু করেন মুম্বইয়ের শিবাজি পার্ক এলাকার একটি অ্যাপার্টমেন্টের এক কামরার ফ্ল্যাটে। কিন্তু ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে তাঁকে সেই ফ্ল্যাট ছাড়তে হয়। কুণাল কামরার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য তাঁকে ফ্ল্যাট ছাড়তে হয়েছিল বলে দাবি। এমনকী বাড়ির মালিকের সঙ্গে কুণাল কামরার হোয়াটসঅ্যাপ কথোপকথনও প্রকাশ্যে এসেছিল।
হালফিলের কমেডির সঙ্গে প্রখর রাজনৈতিক ব্যাঙ্গ মিশিয়ে পরিবেশন করার ক্ষেত্রে দেশে এখন অন্যতম নাম কুণাল কামরা। কখনও নরেন্দ্র মোদী, আবার কখনও বিজেপি, নোটবন্দি, আবার কখনও বিজেপি ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত সাংবাদিককূল। কুণাল কামরার স্ট্যান্ডআপ কমেডি কার্যত হটকেক। শব্দ চয়ন থেকে শুরু করে মানসিকতা, সবেতেই দেশের স্ট্যান্ডআপ কমেডিতে অনন্য কুণাল কামরা।

Comments
Loading...