শিশু ধর্ষণে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড, অর্ডিন্যান্সে কেন্দ্রের। কাঠুয়ার নিন্দায় রাষ্ট্রসংঘ

কাঠুয়া কান্ডের পর দেশজোড়া সমালোচনার মধ্যেই কড়া পদক্ষেপ কেন্দ্রের। শনিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা অর্ডিন্যান্স প্রস্তাব জারি করে জানিয়েছে, ১২ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের ধর্ষণের ঘটনায় সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড। পকসো আইনে এই মর্মে সংশোধনী প্রস্তাব আনা হয়েছিল আগেই। এদিন সেই প্রস্তাবে সম্মতি দিয়ে কেন্দ্র অর্ডিন্যান্স জারি করে। পাশাপাশি, কাঠুয়া নিয়ে আই এমএফ প্রধান ঘুরিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনার পর এবং একই ঘটনার তীব্র নিন্দা করল রাষ্ট্রসংঘ।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে শনিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। সেখানে পাশ হওয়া এই অর্ডিন্যান্স প্রস্তাবে আরও বলা হয়েছে, ১২ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের ধর্ষণ কিংবা গণনধর্ষণের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বনিম্ন সাজা ২০ বছরের জেল অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। সর্বোচ্চ সাজা ফাঁসি। ১৬ বছরের কম বয়সী কোনও কিশোরীকে গণধর্ষণের ঘটনায় সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। ১৬ বছরের কম বয়সের কোনও কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং সর্বনিম্ন সাজা ২০ বছরের জেল সুপারিশ করা হয়েছে। পাশাপাশি মহিলাদের ধর্ষণের ঘটনায় সর্বনিম্ন সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড করা হয়েছে।

কাঠুয়া এবং উন্নাওয়ের ঘটনা নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া জানাল রাষ্ট্র সংঘ। রাষ্ট্র সংঘের পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সম্প্রতি এই দুই ঘটনার তীব্র নিন্দা করা হয়েছে। ভারতে রাষ্ট্র সংঘের রেসিডেন্ট কোঅর্ডিনেটর ইউরি আফানাসিয়েভ জানান, কাঠুয়া এবং উন্নাওয়ের ঘটনা অত্যন্ত উদ্বেগের। ভারতে যেভাবে মহিলা এবং শিশুদের ওপর অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে তা গভীর চিন্তার বিষয়। আশা করি, দুটি ঘটনাতেই দ্রুত বিচার প্রক্রিয়া শেষ হবে এবং নির্যতিতাদের পরিবার সুবিচার পাবে। একদিন আগেই এইএফএমের প্রধান ভারতে মহিলাদের ওপর বেড়ে চলা অপরাধের ঘটনা নিয়ে সরাসরি মোদি সরকারের সমালোচনা করেছিলেন। রাষ্ট্র সংঘের পক্ষে থেকেও একই বিষয়ে নিন্দা করার ফলে আন্তর্জাতিক মহলে দেশের যথেষ্টই সম্মানহানি ঘটল। রাষ্ট্র সংঘের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, ভারতে মহিলাদের ওপর নির্যাতন কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। এই ধরনের ঘটনা বন্ধে জরুরি ব্যবস্থা নেওইয়া উচিত।

Comments
Loading...