লোকসভায় ভরাডুবির শিক্ষা: তৃণমূলের বিরুদ্ধে জোট প্রস্তুতি শুরু সিপিএম-কংগ্রেসের, সোমেনকে বাদ দিয়ে অধীরের হাত ধরছে আলিমুদ্দিন

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবি থেকে শিক্ষা নিয়ে রাজ্যে ফের জোটের সলতে পাকানো শুরু করে দিল সিপিএম এবং কংগ্রেস। এবং প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রকে বাদ দিয়েই এই জোট গড়ার জন্য সিপিএম হাত বাড়িয়ে দিল কংগ্রেসের লোকসভার নেতা এবং সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর দিকে। অধীর চৌধুরী প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি থাকার সময়েই ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যে আসন সমঝোতা করেছিল সিপিএম-কংগ্রেস।
আগামী ৩ রা অগাস্ট প্রয়াত সিপিএম নেতা এবং রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী সুভাষ চক্রবর্তীর স্মরণসভার আয়োজন করতে চলেছে সুভাষ চক্রবর্তী ফাউন্ডেশন। লোকসভা ভোট পরবর্তী বাংলায় বারবার উত্তপ্ত হওয়া বারাকপুরের সুকান্ত সদনে এই স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। ‘অসহিষ্ণুতার বর্বরতা আর কতদিন’ শীর্ষক এই আলোচনাসভার বিষয় এবং বক্তার তালিকা থেকেই পরিষ্কার, নামেই প্রয়াত সুভাষ চক্রবর্তীর স্মরণসভা, আসলে তা পরিণত হতে চলেছে পুরোদস্তুর রাজনৈতিক সমাবেশে। কারণ, এই স্মরণসভার প্রধান দুই বক্তা সিপিএম পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম এবং কংগ্রেসের লোকসভার নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী। তাঁরা ছাড়াও বক্তা হিসেবে থাকবেন আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য, এসএফআই নেতা ময়ূখ বিশ্বাস এবং অভিনেতা বাদশা মৈত্র।

সিপিএমের অন্দরে মহম্মদ সেলিম বরাবরই কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতা বা জোটের পক্ষে জোরদার সওয়াল করেছেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচন থেকে ২০১৯ এর লোকসভা পর্যন্ত বারবারই রাজ্যে তো বটেই, কেন্দ্রীয় কমিটি এবং পলিটব্যুরোতেও কংগ্রেসের সঙ্গে আসন সমঝোতার ক্ষেত্রে অনড় ছিলেন সেলিম। অন্যদিকে, তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সিপিএম সহ বামেদের পাশে পেতে গত কয়েক বছর ধরেই দলের ভেতরে এবং বাইরে ইতিবাচক ভূমিকা নিয়েছেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী। এমনকী ২০১৯ লোকসভা ভোটে প্রদেশ সভাপতি সোমেন মিত্র এবং আরও কয়েকজন কংগ্রেস নেতার জন্য শেষ পর্যন্ত আসন সমঝোতা ভেঙে গেলেও, বহরমপুরে অধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে প্রার্থী দেয়নি বামেরা।

লোকসভা ভোটে বাম-কংগ্রেসের আসন সমঝোতা হলে যে রাজ্যে ভোটের ফলাফল অনেকটাই অন্যরকম হোত, তা নিশ্চিতভাবেই বুঝতে পারছেন সিপিএম নেতৃত্ব। তৃণমূল বিরোধী ভোট যেভাবে পুরোপুরি বিজেপির দিকে চলে গিয়েছে তা ততটা যেত না বলেই ধারণা আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের। আর সেই কারণে লোকসভার ফল বেরোতেই ২০২১ বিধানসভা ভোটের কথা মাথায় রেখে এখন থেকেই ফের কংগ্রেসকে স্পষ্ট জোটবার্তা দিতে চাইছে আলিমুদ্দিন স্ট্রিট। আর তা ফলপ্রসূ করতে লোকসভা ভোটের ঠিক আগে সোমেন মিত্র এবং বিমান বসুর একে অপরের বিরুদ্ধে কিছু মন্তব্য যে মানুষের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছিল, তার থেকে বেরোতে এবার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতিকে বাদ দিয়ে ৩ রা অগাস্টের কর্মসূচিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে অধীর চৌধুরীকে। আলিমুদ্দিন স্ট্রিট বুঝতে পারছে, শুধু পতাকা ছাড়া যৌথ রাজনৈতিক কর্মসূচি নেওয়াই যথেষ্ট নয়, রাজ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিশ্বাসযোগ্য বিরোধী ভূমিকা নিতে এখন থেকেই কংগ্রেসকে সঙ্গে নিয়ে লাগাতার আন্দোলন, কর্মসূচি গড়ে তোলা দরকার। ৩ রা অগাস্টের সভা থেকে সিপিএম-কংগ্রেসের দুই শীর্ষ নেতা মহম্মদ সেলিম এবং অধীর রঞ্জন চৌধুরী তৃণমূলের বিরুদ্ধে যৌথ আন্দোলন এবং একসঙ্গে চলার বার্তা দেবেন বলেই সূত্রের খবর।

Comments
Loading...