বিক্রি করা হবে ৪২ টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা? ১০০ দিনের মধ্যে বড়সড় সংস্কারের পথে মোদী সরকার, বললেন নীতি আয়োগ প্রধান

৪২ টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা কি বন্ধের মুখে? নাকি সেগুলো বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার তোড়জোড় করছে মোদী সরকার? নতুন সরকার শপথ নেওয়ার এক সপ্তাহ কাটতে না কাটতেই মাথাচাড়া দিচ্ছে এই প্রশ্ন। আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে এই জল্পনা উস্কে দিলেন নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারপার্সন রাজীব কুমার।
রাজীব কুমার বলেন, মোদী সরকারের পুনরায় ক্ষমতায় আসার ১০০ দিনের মধ্যে দেখতে পাওয়া যাবে বেশ বড় আকারের সংস্কারের পদক্ষেপ। যাঁকে তিনি অভিহিত করছেন ‘বিগ ব্যাং রিফর্মস’ নামে। রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বেসরকারিকরণ কিংবা চিরতরে বন্ধ করার সিদ্ধান্তের পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণ করতে ল্যান্ড ব্যাঙ্ক এবং শ্রম আইনে সংস্কারের মতো কাজ প্রথম একশো দিনের মধ্যেই সেরে ফেলতে চান নরেন্দ্র মোদী। নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারপার্সন অন্তত সেদিকেই ইঙ্গিত করছেন।
সম্প্রতি রয়টার্সকে একটি সাক্ষাৎকার দেন নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারপার্সন রাজীব কুমার। তিনি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের খুশি হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। আগামী দিনগুলোতে যে আপনারা বড়সড় সংস্কার দেখতে পাবেন, আমি তা নিয়ে নিশ্চিত।
মূলত শ্রম আইন, নয়া শিল্প নীতির জন্য ল্যান্ড ব্যাঙ্ক এবং বেসরকারিকরণের ক্ষেত্রে সংস্কারের রূপরেখা স্থির করা হয়েছে বলে সূত্রের খবর। রয়টার্সের সাংবাদিকের এক প্রশ্নের উত্তরে রাজীব কুমার জানান, আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই নরেন্দ্র মোদী সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে ৪২ টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে চিরতরে বন্ধ কিংবা বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করতে চলেছে। এজন্য একটি স্বশাসিত সংস্থা তৈরি করা হবে, যে সংস্থা এই প্রক্রিয়াগুলো চালাবে। এর ফলে আমলাতন্ত্রের ফাঁস কেটে বেরোনো যাবে বলে মন্তব্য রাজীব কুমারের। গতি আসবে সম্পত্তি বিক্রি করে আয়ের প্রক্রিয়ায়। পাশাপাশি নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারপার্সন জানিয়েছেন, জুন মাসে সংসদে বাদল অধিবেশনেই পাশ হয়ে যাবে শ্রম আইনের সংস্কার বিল। সূত্রের খবর, নতুন বিলে বর্তমানে থাকা ৪৪ টি কেন্দ্রীয় সরকারি আইনকে মোট চারটি ভাগে ভাগ করা হবে। মজুরি, শিল্প ক্ষেত্রে পারস্পরিক সম্পর্ক, সামাজিক নিরাপত্তা এবং কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য এবং পরিবেশ, এই কোডগুলোকে শ্রম আইনে ফেলে, তা ঢেলে সাজানো হবে। একই সঙ্গে রাজীব কুমার আরও জানান, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের টানতে সরকার শিল্প গড়তে জমি দেওয়ার প্রস্তাব দিতে পারে। ল্যান্ড ব্যাঙ্ক থেকে এই জমিগুলো দেওয়া সম্ভব। রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থার উদ্বৃত্ত জমি থেকেই তৈরি হবে ল্যান্ড ব্যাঙ্ক, বলে জানান নীতি আয়োগের ভাইস চেয়ারম্যান। এছাড়াও নড়বড়ে এয়ার ইন্ডিয়াকে বিক্রি করতে প্রয়োজনে বিদেশি বিনিয়োগকারীদেরও আহ্বান জানানো হতে পারে।

Comments
Loading...