সেনা এবং সশস্ত্র বাহিনীকে নির্বাচনী প্রচার থেকে দূরে রাখুন, রাজনৈতিক দলগুলিকে নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

পোস্টারে ছেয়েছে রাজধানী দিল্লি। সেখানে নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহের সঙ্গে একই ফ্রেমে স্থান পেয়েছেন পাকিস্তানে আটক ও পরে মুক্তি পেয়ে দেশে ফেরা উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। পোস্টারে লেখা হয়েছে ‘মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়’। ইঙ্গিত স্পষ্ট, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে পাক ভূখণ্ডে ভারতের এয়ার স্ট্রাইক ও অভিনন্দন বর্তমানে ফিরে আসাকে প্রচারের অন্যতম হাতিয়ার করতে চলেছে বিজেপি। কর্মসংস্থান, আর্থিক বৃদ্ধি, সামাজিক ন্যায়, কৃষক মৃত্যু, রাফাল দুর্নীতি ইত্যাদি একাধিক ইস্যুতে বেকায়দায় পড়া পদ্ম শিবির এখন চাইছে জাতীয়তাবাদের হিড়িক তুলে ভোট বৈতরণী পার হতে, এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলের।
কিন্তু বিজেপির এই কৌশলে এবার বাধ সাধল নির্বাচন কমিশন। শনিবার কমিশন নির্দেশ দিয়েছে, কোন রাজনৈতিক দল নিজেদের প্রচারের স্বার্থে ব্যবহার করতে পারবে না দেশের সশস্ত্র বাহিনীকে। দেশের সবকটি রাজনৈতিক দলের উদ্দেশ্যে জারি করা নোটিশে নির্বাচন কমিশন মনে করিয়ে দিয়েছে, দেশের সেনা এবং সশস্ত্র বাহিনী হল ভারতীয় সংবিধানের একটি অরাজনৈতিক এবং নিরপেক্ষ অংশ।
অভিনন্দন বর্তমান পাকিস্তান থেকে ভারতে ফেরার পরই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি দাবি করেছিলেন, অভিনন্দনের এই ফিরে আসার পেছনে নাকি আরএসএস-এর পরাক্রম দায়ী। নাম না করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর গুণকীর্তণই স্মৃতি করেছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। রাহুল গান্ধী, সীতারাম ইয়েচুরি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বিরোধীরাও দাবি করেছেন, পাক ভূখন্ডে ভারতের এয়ার স্ট্রাইক এবং অভিনন্দন বর্তমানের ফিরে আসা এবং পাকিস্তানের সঙ্গে একটি যুদ্ধ যুদ্ধ রব তুলে ভোটে ভাল ফল করতে চাইছে চাইছে পদ্ম শিবির।

Comments
Loading...