রাজ্যপালকে গো ব্যাক স্লোগান! BJP সাংসদকে পাশে নিয়ে IC’কে প্রকাশ্যে ধমক ধনখড়ের

এই ঘটনার পর বিক্ষোভকারীদের তাড়া করে হটিয়ে দেয় পুলিশ

কোচবিহার সফরে দফায় দফায় বিক্ষোভের মুখে রাজ্যপাল। জোড়পাটকির পর দিনহাটাতেও ধনখড়ের কনভয় ঘিরে গো ব্যাক স্লোগান।

হিংসা খুঁজতে কোচবিহার এসেছেন রাজ্যপাল ধনখড়। সেখানে তাঁর সঙ্গী বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক। জোড়পাটকি এবং গোলকগঞ্জে তাঁকে কালো পতাকা দেখানো হয়। পরে দিনহাটাতে রাজ্যপালকে ‘বিজেপির-রাজ্যপাল’ বলে স্লোগান দেওয়া হয়। যা শুনে রেগে যান রাজ্যপাল ধনখড়। কার্যত তাড়া করে স্থানীয় থানার আইসিকে ধমক দিতে থাকেন। পাশে দাঁড়িয়ে বিজেপি সাংসদ। তিনি বিক্ষোভকারীদের উপর পুলিশকে লাঠিচার্জ করার নির্দেশ দেন। এই ঘটনার পর বিক্ষোভকারীদের তাড়া করে হটিয়ে দেয় পুলিশ।

তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাপার হল সংবাদমাধ্যমকে এই বিষয়ে যখন বাইট দিচ্ছেন রাজ্যপাল, তখন তিনি আইসিকে ফের একবার ডেকে পাঠান এবং ক্যামেরার সামনে ধমক দিতে থাকেন। বলেন, সব অজুহাত রয়েছে শুধু আইন-শৃঙ্খলা সামলাতে না পারার কোনও অজুহাত হয় না। পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে রাজ্যপাল দাবি করেন, স্থানীয় মানুষের চোখে পুলিশের প্রতি ভয় লক্ষ্য করেছি। তাদের ঘরবাড়ি ভাঙা হয়েছে। মেয়ের বিয়ের জন্য রাখা জিনিসপত্র লুট হয়েছে। আপনারা কোথায় থাকেন? রাজ্য প্রশাসনকে বিঁধতে গিয়ে একসময় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় বলেন, অপশাসনের উলঙ্গ নৃত্য শব্দবন্ধ।

প্রশ্ন উঠছে, বিজেপির সাংসদকে সঙ্গে নিয়ে শুধুমাত্র বিজেপি সমর্থকদের বাড়িতে যাওয়ার তাৎপর্য কী? রাজ্যপালের সফর সঙ্গী সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক পুলিশকে লাঠিচার্জের আদেশ দিতে পারেন কী করে? ধনখড়ের কোচবিহার সফর নিয়ে তৃণমূলের পাশাপাশি সমালোচনার ঝড় উঠেছে বাম-কংগ্রেস মহলেও। প্রত্যাশিত ভাবেই রাজ্যপালের কর্মকাণ্ডে আপত্তি দেখছে না বিজেপি।

রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় স্যোশাল মিডিয়ায় জানিয়েছিলেন, বৃহস্পতিবার শীতলকুচি যাচ্ছেন। একই সঙ্গে কোচবিহারের ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস কবলিত বিভিন্ন জায়গাগুলি। তাই কথা মত ১৩ মে সকালে শীতলকুচিতে গিয়ে পৌছান তিনি। এর আগে বুধবার রাজ্যপালের সফর নিয়ে কড়া চিঠি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

Comments
Loading...