পূর্ব ভারতে প্রথম হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপন কলকাতায়, বেঙ্গালুরু থেকে আনা হল হৃৎপিন্ড।

পূর্ব ভারতের প্রথম হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপন হল কলকাতায়। সোমবার ইস্টার্ন মেট্রোপলিটন বাইপাস সংলগ্ন ফর্টিস হাসপাতালে প্রায় দু’ঘন্টা অস্ত্রোপচার হয়। অত্যন্ত কঠিন এবং জটিল এই অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে বলে দাবি করেন ফর্টিস হাসপাতালের চিকিৎসকরা। প্রায় ৩০ জন চিকিৎসকের একটি দল এই অস্ত্রোপচার করেন। বেঙ্গালুরু থেকে হৃৎপিন্ড সোমবারই কলকাতায় আনা হয়, তারপর তা গ্রিণ করিডরে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে ১৮ মিনিটে পৌঁছে দেওয়া হয় আনন্দপুরের কাছে বেসরকারি হাসপাতালে। তারপরই শুরু হয় অস্ত্রোপচার।


বেঙ্গালুরুতে ১৯ মে পথ দুর্ঘটনায় আহত হন বরুণ ডি কে নামে এক যুবক। চিকিৎসকরা জানান, বরুণের ব্রেন ডেথ হয়েছে। পরিবারের সদস্যরা চিকিৎসকদের জানান, তাঁরা বরুণের অঙ্গদান করতে চান। চিকিৎসকরা ওই তরুণের হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপনের জন্য যোগাযোগ করেন চেন্নাইয়ের মালহার ফর্টিস হাসপাতালে।


কিন্তু সেই সময় সেখানে এমন কোনও রোগী ছিলেন না, যাঁর হৃৎপিন্ডের প্রয়োজন আছে। চেন্নাই ফর্টিস কর্তৃপক্ষ খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, কলকাতার আনন্দপুরের ফর্টিস হাসপাতালে ভর্তি আছেন ঝাড়খন্ডের দিলচাঁদ সিংহ। যাঁর হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপন প্রয়োজন। বরুণ এবং দিলচাঁদের রক্তের গ্রপও এক, এ পজিটিভ। আর সময় নষ্ট করতে চাননি চিকিৎসকরা। দ্রুত কথা বলা হয় পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং জাতীয় অঙ্গ প্রতিস্থাপন সংস্থার সঙ্গে।
সোমবার সকালেই বরুণের শরীর থেকে হৃৎপিন্ড বার করে বিশেষভাবে সংরক্ষণ করে চার্টাড বিমানে নিয়ে আসা হয় কলকাতায়। দমদম বিমানবন্দর থেকে কলকাতা এবং সল্টলেক পুলিশের সহযোগিতায় দ্রুত তা পৌঁছে দেওয়া হয় বাইপাস আনন্দপুরের ফর্টিস হাসপাতালে। তাপর সকাল সাড়ে ১১ট নাগাদ শুরু হয় হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপনের কাজ। দু’ঘন্টার সামান্য বেশি সময় অস্ত্রোপচার চলে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচার সফল। দিলচাঁদকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

Comments
Loading...