হরিয়ানার আইএএস অফিসার অশোক খেমকা ফের বদলি, এই নিয়ে ৫৩ বার

‘সততার পুরস্কার শুধুই অপমান’, চাকরি জীবনের ৫৩ তম বদলি নিয়ে এমনই মন্তব্য করলেন আইএএস অফিসার অশোক খেমকা। সম্প্রতি হরিয়ানার বিজেপি সরকার ১৪ জন আইএএস অফিসারকে বদলির নোটিস দিয়েছে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন অশোক খেমকা। প্রশাসনের অন্দরে ‘ন্যায়পরায়ণ’ অফিসার হিসেবে পরিচিত আইএএস অফিসার খেমকাকে এই নিয়ে ৫৩ বার বদলি করা হল।
হরিয়ানার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দফতরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি ছিলেন খেমকা। সেখান থেকে তাঁকে বদলি করা হয়েছে কম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতত্ত্ব ও প্রদর্শশালা সংরক্ষণ দফতরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি হিসেবে। এই বদলি নিয়ে ট্যুইটারে ক্ষোভ উগরে দেন ১৯৯১ ব্যাচের এই আইএএস অফিসার। তিনি লেখেন, ফের বদলি, আবারও একই জিনিস। মঙ্গলবারই পালিত হয়েছে সংবিধান দিবস। কিন্তু আজ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ ও নিয়ম ফের লঙ্ঘিত হল। কেউ কেউ এই খবরে খুশি হবেন। একেবারে কিনারায় ঠেলে ফেলা হল যে আমাকে।
হরিয়ানায় যে দলই ক্ষমতায় থাকুক, নিজের কর্তব্য পালন করতে গিয়ে বারবার তাদের কোপে পড়েছেন খেমকা। এই আইএএস অফিসার প্রথম শিরোনামে আসেন ২০১২ সালে। কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরার স্বামী রবার্ট বঢরার স্কাইলাইট হসপিটালিটি ও রিয়েল-এস্টেট ডেভেলপার ডিএলএফের মধ্যেকার জমি লেনদেনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। অনিয়মের অভিযোগে ওই জমির মিউটেশন বাতিল করে কংগ্রেসের তোপের মুখে পড়েন। এক অডিট রিপোর্টে বলা হয়, বঢরাকে বিশেষ সুবিধা দিতে নিয়ম বদল করেছিল কংগ্রেস। যদিও হরিয়ানার তৎকালীন ভুপিন্দর সিং হুডার সরকার এই রিপোর্টকে অস্বীকার করে। রবার্ট বঢরার ‘সামাজিক মর্যাদা খুণ্ণ করা’ ও ‘ইচ্ছাকৃত ভাবে’ জমি হস্তান্তরের প্রক্রিয়া রদ করার অভিযোগে অশোক খেমকার বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়। বদলি হন তিনি।
এরপর ২০১৫ সালে হরিয়ানা ওয়ারহাউস কর্পোরেশনের (এইচএসডব্লুসি) ম্যানেজিং ডিরেক্টর থাকাকালীন খেমকার বিরুদ্ধে ‘পদ্ধতিগত অনিয়ম’- এর অভিযোগ তোলে বিজেপি সরকার। যদিও পরে সে অভিযোগ নস্যাৎ হয়ে যায়।
গত মার্চ মাসেই হরিয়ানার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দফতরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় তাঁকে। তার আগে ১৫ মাসের জন্য ছিলেন হরিয়ানার ক্রীড়া ও যুব কল্যাণ দফতরের সেক্রেটারি। এবার এক মাস আগে ক্ষমতায় আসা বিজেপি-জননায়ক জনতা পার্টি সরকারের কোপে পড়লেন অশোক খেমকা।

 

Comments
Loading...