অসমে বিজেপির পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী কি রঞ্জন গগৈ? কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈয়ের দাবি ওড়ালেন অবসরপ্রাপ্ত CJI

সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ হতে পারেন অসমে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীর মুখ। চাঞ্চল্যকর দাবি অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈয়ের। তাঁর কথায়, “সবই রাজনীতি। রঞ্জন গগৈয়ের রাম মন্দির রায়ে বিজেপি খুশি। তারই পুরস্কার হতে পারে মুখ্যমন্ত্রী পদ।”

শনিবার তরুণ গগৈ বলেন, সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আস্তে আস্তে রাজনীতিতে পা ফেলছেন। রাজ্যসভার মনোনয়ন দিয়ে তার শুরু। তরুণ গগৈ প্রশ্ন তোলেন, কেন রাজ্যসভায় যেতে রাজি হলেন? খুব সহজেই মানবাধিকার কমিশন বা অন্য কোনও কমিশনের প্রধান হতে পারতেন। কিন্তু অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ তা করেননি। কারণ তাঁর রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা আছে, দাবি অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর।

কার্যকালে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ও বিতর্কিত মামলার নিষ্পত্তি করেছেন রঞ্জন গগৈ। যার মধ্যে অন্যতম দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অযোধ্যা রাম মন্দির মামলা। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বেঞ্চ অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির গড়ার পক্ষে রায় দেন। এই প্রেক্ষিতে তিনি অসমের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হতে পারেন বলে দাবি করে হইচই ফেলে দিলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈ।

শনিবার তরুণ গগৈ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমি আমার সূত্র মারফত খবর পেয়েছি রঞ্জন গগৈকে অসমের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করতে পারে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসেবে তাঁর নাম বিজেপির তালিকায় রয়েছে। তরুণ গগৈয়ের দাবি, অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি যদি রাজ্যসভার সাংসদ হতে পারেন তাহলে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হওয়ার প্রস্তাবেও তিনি সায় দিতে পারেন।

যদিও কংগ্রেস নেতার দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। তিনি বলেন, আমি বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী নই। তাঁর পাল্টা কটাক্ষ, কেউ যদি রাজ্যসভার মনোনীত সদস্য আর নির্বাচিত সদস্যের মধ্যে পার্থক্য না বোঝেন, সেটা দুর্ভাগ্যের। আমি মনোনীত সদস্য হতে রাজি হয়েছি, কারণ দলমত নির্বিশেষে নিজের বক্তব্য রাজ্যসভায় পেশ করতে পারব।

Comments
Loading...