লোকসভার প্রার্থীদের ৫ বছরের আয়কর রিটার্ন ও বিদেশে থাকা সম্পত্তির হিসেব জমা দিতে হবে

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে সব প্রার্থীকে পাঁচ বছরের আয়কর ও বিদেশি সম্পত্তির যাবতীয় হিসেব দেওয়ার নির্দেশ দিল আইন ও বিচার মন্ত্রক। ২৬ শে ফেব্রুয়ারি কনডাক্ট অব ইলেকশন (সংশোধনী) আইন ২০১৯ অনুযায়ী এই নোটিস জারি করা হয়।
১৯৫১ সালের রিপ্রেজেন্টেশন অফ পিপল অ্যাক্ট অনুসারে, লোকসভা নির্বাচনে লড়ার জন্য প্রার্থীর ও তাঁর স্ত্রী বা স্বামীর শেষ এক বছরের আয়কর হিসেব জমা দিতে হত আবেদনপত্রে। কিন্তু মঙ্গলবার সংশোধিত আইন অনুযায়ী, প্রার্থীর বিদেশি ব্যাঙ্কে থাকা যাবতীয় আমানত বা বিদেশে অন্য কোনও প্রতিষ্ঠানে লগ্নি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জমা দিতে হবে তাঁর আবেদনপত্রে। শুধু প্রার্থী নয়, তাঁর স্বামী বা স্ত্রী এবং পরিবারের প্রধান কেউ থাকলে তাঁদেরও পাঁচ বছরের আয়কর ও সম্পত্তির হিসেব দেওয়ার নির্দেশ আইন ও বিচার মন্ত্রকের। সম্পত্তির হিসেব ছাড়াও প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং কোনও অপরাধমূলক ইতিহাস থাকলে তা উল্লেখ করার কথা বলে হয়েছে ওই নির্দেশিকায়।
গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ নির্দেশ দিয়েছিল, প্রার্থীর বিরুদ্ধে কোনও অপরাধমূলক মামলা থাকলে তা হলফনামায় উল্লেখ করতে হবে। যদি প্রার্থীর বিরুদ্ধে কোনও অমীমাংসিত অপরাধমূলক মামলা থাকে তা হলফনামায় মোটা হরফে উল্লেখ করার কথা বলে সুপ্রিম কোর্ট। যদি কোনও প্রার্থী অপরাধমূলক মামলায় যুক্ত থাকেন তবে তাঁকে ও সংশ্লিষ্ট দলকে এসম্পর্কে জনতাকে অবহিত করতে হবে, এছাড়া তাঁর এলাকায় সবচেয়ে বিক্রিত খবরের কাগজ ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়াতেও এ নিয়ে প্রচার করতে হবে বলে জানিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট।

Comments
Loading...