নির্দিষ্ট কেউ নন, বিজেপি বিরোধী সব দলের নেতাই জোটের মুখ, বললেন মমতা-চন্দ্রবাবু

পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী সোমবার বিকেলে কলকাতায় এসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করলেন অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু। বিকেল সাড়ে ৪ টে নাগাদ নবান্নে যান টিডিপি সুপ্রিমো চন্দ্রবাবু। প্রায় এক ঘন্টার উপর কথা হয় দুজনের। বৈঠক শেষে চন্দ্রবাবু জানান, বর্তমান বিজেপি সরকারের আমলে দেশের সব কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দেওয়া করে দেওয়া হচ্ছে। তাই দেশের স্বার্থে সময় এসেছে মানুষের জন্য সব বিরোধী দলদলগুলির একজোট হওয়ার। সেই লক্ষ্যেই এদিন তাঁর কথা হয়েছে তৃণমূল সুপ্রিমোর সঙ্গে।
বৈঠক শেষ চন্দ্রবাবু অভিযোগ করেন, কেন্দ্র সিবিআইকে ব্যবহার করছে বিরোধী নেতা-নেত্রীদের বিরুদ্ধে। এদিন চন্দ্রবাবু জানিয়েছেন, আগামী ২২ নভেম্বর দিল্লিতে প্রস্তাবিত বিরোধী দলগুলির মিটিং পিছিয়ে যাচ্ছে, বৈঠকটি হবে আগামী মাসে সংসদের শীতকালীন অধিবেশনের আগে।
এদিন সাংবাদিক বৈঠকে এক প্রশ্নের উত্তরে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বিরোধী জোটের প্রত্যেকেই প্রস্তাবিত বিরোধী জোটের মুখ। তিনি বলেন, দেশকে সর্বনাশের হাত থেকে বাঁচাতেই বিরোধীদের একজোট হওয়ার সময় এসেছে। আগামী ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেডে তৃণমূলের ডাকা মহা সমাবেশে আসার জন্য তিনি টিডিপি সুপ্রিমোকে আবেদন জানিয়েছে।
সূত্রের খবর, সম্ভবত ডিসেম্বরের ১০ তারিখ বিরোধীদের প্রস্তাবিত বৈঠকটি হবে। ছত্তিশগড় বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের আগে এই বৈঠক নিয়ে আপত্তি জানিয়েছিল বেশ কয়েকটি বিরোধী দল। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বিজেপিকে হারাতে এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কোণঠাসা করতে সবকটি বিরোধী দলকে এক মঞ্চের তলায় এনে মহাজোট গঠন করতে চাইছেন নাইডু। এই লক্ষ্যে গত দুই সপ্তাহে তিনি রাহুল গান্ধী, শরদ যাদব, অরবিন্দ কেজরিওয়াল, ওমর আবদুল্লা, এইচ ডি কুমারস্বামী, এম কে স্ট্যালিন, মমতা বন্দ্যপাধ্যায়সহ একাধিক বিরোধী নেতা-নেত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন নাইডু।

Comments
Loading...