পেনাল্টি নষ্ট করেও বড় ম্যাচের আগে স্বস্তির জয় মোহনবাগানের, বিএসএস-কে হারাল ২-১ গোলে

কথায় বলে দিনের শুরু দেখলে, বোঝা যায় শেষটা কেমন যাবে। তবে সব সময় তা হয় না। যেমন হল না, বুধবার কল্যাণীতে। বিএসএস-এর বিরুদ্ধে ম্যাচের তিন মিনিটে পেনাল্টি নষ্ট করেন মোহনবাগানের ফ্রান গঞ্জালেজ। তাঁর শট পোস্টে লাগে। তাতে অবশ্য জয় পেতে সমস্যা হয়নি মোহনবাগানের। বিএসএস-কে ২-১ গোলে হারিয়ে লিগে প্রথম জয় পেল মোহনবাগান। এদিন কিবু ভিকুনার দলের হয়ে গোল দুটি করেন সালভা চামোরো এবং নাওরেম। লিগে তিন ম্যাচ খেলে চার পয়েন্টে পৌঁছালো মোহনবাগান।
এদিন প্রথম একাদশে বেইতিয়াকে রাখেননি মোহনবাগান কোচ। তবু তিন মিনিটের মধ্যেই এগিয়ে যেতে পারতো সবুজমেরুন ব্রিগেড। ইমরান খানের ফ্রিকিক বক্সের মধ্যে বিএসএস-এর বিকাশ সাইনির হাতে লাগে। কিন্তু পেনাল্টি নষ্ট করেন মোহনবাগানের ফ্রান গঞ্জালেজ। মোহনবাগানের এগিয়ে যাওয়া ম্যাচের ৩০ মিনিটে। নাওরেমের সেন্টার, জোরালো হেডে মোহনবাগানকে এগিয়ে দেন সালভা চামোরো। অবশ্য সেই গোল মাত্র তিন মিনিট ধরে রাখতে পেরেছিল সবুজমেরুন। মোহনবাগান রক্ষণের ভুলে বিএসএসকে সমতায় ফেরান উইলিয়াম ওপোকু। তারপরেই অবশ্য গোলরক্ষককে কাটিয়েও বল জালে রাখতে পারেননি নাওরেম।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ফের এগিয়ে যায় মোহনবাগান। এগিয়ে দেন সেই নঙদম্বা নাওরেম। ব্রিটোর ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে জয়সূচক গোলটি করেন প্রাক্তন যুব বিশ্বকাপার। ম্যাচের শেষের দিকে মোহনবাগান রক্ষণের উপর চাপ বাড়ে। তাতে অবশ্য তেমন সমস্যা তৈরি হয়নি। ম্যাচ জয়ের পর মোহনবাগান কোচ কিবু জানালেন, ‘আজকের জয় আমাদের ভীষণ প্রয়োজন ছিল। তবে আমরা অনেক সুযোগ নষ্ট করেছি। আমার মতে ম্যাচটা ৪-১ গোলে জিততেই পারতাম। বৃহস্পতিবার থেকে আমরা বড় ম্যাচের প্রস্তুতি শুরু করবো।’

Comments
Loading...